Search

Category

Thoughts

Ostentation, Social Media and Humanity

“Rest in Peace” or RIP – three touchy words which implied a silent prayer for the departed has morphed with the same text, but lacking the human touch. Treading many deaths of near and dear ones in the last couple of years, with upsurge of exhibitionism in different avenues of social media, i.e. Facebook, Twitter, WhatsApp, Goggle, LinkedIn etc., it highlighted the abstruse three words.

We all are aware, death is the inevitable prognosis of being born. We aren’t aware of its timing only. For some, it might occur unpredictably at an incredible age under off-the-wall situations. For others, it is the aftermath of an aging process, the life span varying in different individuals. In realistic terms, it is the termination of a mortal process, the finale of the physical being. In our mortal life, this marks the ultimate interaction with the individual, be it in present or past reality, or virtual reality of social media.

No doubt, in the www age, social media has become a part and parcel of our existence today. With messaging, human interaction weaned to the press of a button. Even that click on the button would’ve had the same effect, where silence is only mode of condolence verbalism. In few deaths over a couple of weeks of close friends, amid a thread of condolence messages, it was a blow out of the water to see other ‘common friends’ suddenly posting their or family’s pictures with the ongoing thread. Was it the right moment? Opinions may vary, arguments may be put forward for justification “Just because someone has died, doesn’t debar anyone from posting selfies and other pictures”. Is it appropriate for a disco dance in a Sraddha milieu? Accepting both are part of life. Taken aback, balled over even in techno-savvy progressive milieu, I was at a loss. Where are we heading? Is human relation all about fanfare of presence?

It raised a critical question, where are we advancing?

Having spent most of my life without the social media, either to boost the identity or inter-personal communication, a gift from Alexander Graham Bell after its repeated alteration, had been the communique mode, wired or wireless. When a caller called, I could feel a human voice with fragment of emotions in its tone. With smartphones gradually percolating the communique scenario, it shortened to texts than voice, where the message was obvious, emotions weren’t. With wildfire of social outlets, the costing texts found its way to the internet domain, which didn’t charge for individual messages. Yep… financially more viable. Until then or recouping old confrères was good enough function of the nascent social platform sprouting without structure, direction or legislation.

More than interactive communiqué, it soon became a platform of political slogans and publicity machinery, family album and worse still an hourly calendar reaching perilous expressions of psychological insufficiency or precisely identity crisis. The celebrities flooded it with their media clips, desperate to establish a niche amid muddled identity. If one is known, does he/she need to harp the media presence on a periodic basis? If one delves deeper into the psyche, element of insecurity is at its crux. For those, not fortunate to be a celebrity, basked in their reflected glory with other celebs, posting pictures with them, thereby appending to celeb penury.  This soon led others treading the trail posting pictures initially with their family and friends, later of themselves alone or in group as ‘selfie’. Even eminent persona joined in the trend. Often these picture posts are on a daily to an hourly basis, endorsing their mental deprivation only to be classified by American Psychiatric Association as ‘SELFITIS’, a psychological disorder. A fresh mode evolved in its presentation. For any social or national occasion, the greetings included a picture of their profile.

What Swami Vivekananda actually meant by ‘leave a mark in life’, the social bundle re-defined him in their own interpreted light of selfitis.  With human interaction waning to the press of a button, even in adequate human milieu, people became mobile freaks. It became more important to post a cosy dinner in social media than enjoy it in the company of others. Technology took over the reins of human interaction shoving them into solitary tech isolation. As human interaction diminished, in despair people clung more to the social platforms. Rather than cultivate furtive qualities, exhibitionism without content became the avenue of ‘leaving a mark in life’. People stopped reading, understanding. Supplementing with ‘likes’ to gain popularity or other vested interests trying to build a footmark in virtual world hoping for its reflection in reality, which expectedly was amiss.

Often, it makes me wonder, whether these ‘likes’ on profiles mean anything at all, other than slaking a desire of existence amongst some. Any adverse opinion is distraught which could result in being ‘unfriended’ or ‘blocked’. A virtual world thus survives on same principles as reality “Talk my language or you aren’t in my world”. This further proves the insecurity in a desperate attempt to gain a herd of cliques. Everyone may not be a celebrity, but the insecurity is same for all. They forget it is themselves they can only control. It’s their inner strength which establishes the identity, not a herd flocking around or endorsing their silliness.

The ostentation is reaching dangerous heights on these new established platforms. The more the exhibitionism, more the human pauperisation. Technology has advanced to catalyse human interactions. When it takes over humanity, what technological robots is the future creating? Another Frankenstein? Time to ponder than leap.

Cover Artist : Aditi Chakraborty

 

Advertisements

Media in Peril

With media in doldrums, its balance sheet nose-diving the deep canyon, it’s time to review the situation in a new verve. I would omit the grounds of its calamity, as it had been highlighted in two of my other articles “Communique for A Constructive Tomorrow” and “The Bankrupt Media”. It’s futile wailing on the past. It’s time to look ahead as how to meliorate the scenario.

From the format of Keith Rupert Murdoch’s News Corporation (1952), with its global expansion, nearly 60 years have passed. In the span of these years, the society, culture and civilisation have undergone an ultra-mutation. With the boom of the ‘www phenomenon’ at tornado velocity over the past few years, a vista of possibilities has opened. The other form of 21st century Damien. Only the script has altered from the traditional 666 to http://www.  With its several plusses, it is a tool, yet to be handled adequately in productive fashion.  Whether Damien was an anti-Christ, when the whole fable of The Bible was conjectured 180 years after death of Christ (vide The Christ Conspiracy by S Acharya alias D M Murdoch) in a Pagan format to control Saturnalia, for political rein in the name of religion, is a matter for review considering the new evidences. Without delving into the preached myth, which has hypnotized millions over centuries, not without bloodshed, the true form of Damien is yet to be observed in a new light, as of today.

The era might have evolved, the globe might have transformed, the paucity of creative thinking, which forms the main essence of delivery of content, seems to be sold by the ‘marketing gurus’, who seem to have fancy ideas of the marketing strategy, without a clue of the market. It is derisory to underrate the intellect of the mass. They may endure without a choice, but do have the aptitude of appraisal, given the choice between a stale junk and a garnished matter delivered on their platter. Once in control, media gurus tend to forget this basic adage.  No matter how far technology advances, it cannot supersede a dream like Pushpak Rath, later factually established as an aeroplane.  An instant spur, out of the blue, is a gift of God – one which perceives two entangled snakes as double helix of DNA, is the dream, later established scientifically and technologically. Facts can only establish the legitimacy of a conceived dream.

As of today, let us divide the forms of communiqué into two distinct categories – the literate and the illiterate. The illiterate hasn’t much of a choice, other than to accept, what is thrust via the electronic media in the form of audio-visuals. But it would be sheer folly to disrespect their acumen of judgment. They may helplessly turn to a television discussion, but can judge the depth of the panellists. Most of the channels now have a bank of set panellists (paid or unpaid). These people seem to present as a fairylike parrot, who can talk on any subject, as per didactics of their media masters. This results in vomiting rubbish, which alienates the masses. The slogans are easily caught between their skimpy delivery, in the attire of donning a definite colour of a political party, lacking the uniqueness in their expression. The serials tend to harp cliché nonsense dialogues as a pastime. They form the only stay for the elders, who have lost their fitness of reading, at their ripe age. Still others, who lack the focus, watch the episodes as an audio-visual effectuate, relying less on its content. The reality shows neatly billets the failures in showbiz, giving a vent to some income, acting as their pension. The musical and dancing reality shows are in truest sense, not a platform for the new, but an assured income of the producers.

Let us divide the viewers into distinct groups – the housewives who need a spot of relaxation after their mundane chores, the aged (some highly educated and intelligent) who may not be capable to read, yet are in quest of pastime, to while their leisure and the rural folks who has no substitute, but to watch whatever is served in a platter. Let us get away from the concept of building celebrities and thrusting them on any platter, at every occasion. It would be wise to pull in experts in the field.

Housewives could be

  • Given the opportunity of witnessing educational programs of ideal ways child upbringing.
  • Trained in dress designing and fashion
  • General knowledge
  • A summary of happenings around the world
  • Singing and dancing lessons
  • Audio literature
  • Computer and internet training including use of the software
  • Electronic banking
  • Serials from modern stories
  • Music and dance (not-sponsored) by quality upcoming artistes

 

Aged could be

  • Audio literature
  • Serials from modern stories
  • Discussions on religion even with controversies
  • Religious texts in audio form
  • Music and dance (not-sponsored) by quality upcoming artistes

 

Rural Folks could be

  • Given knowledge on local economics (by economic experts, not celebrities)
  • Methods of increasing savings
  • Independent political viewpoints
  • General knowledge
  • Electronic banking
  • A summary of happenings around the world
  • Singing and dancing lessons
  • Audio literature
  • Serials from modern stories
  • Independent (Unsponsored) film reviews
  • Music and dance (not-sponsored) by quality upcoming artistes

 

For the literate, the avenues are plenty. The content would decide whether they are keen to watch the electronic media. In addition to the above mentioned, some serious discourse on progress of science, literature, electronic gadgets, training to handle the gadgets, banking methods etc. The electronic media is not as much in peril as the print media, as it replaces the village honk, with instant delivery.

More in distress is the print media, which must compete with the luscious mistress, the www or the Damien of today. With net and mobile easily accessible, they are their direct competitors in the content, delivered next morning. Most of these media heavily rely on synthetic celebs to boost their sales. The glossy tabloids, which were an oomph, when it came force in 1999, are no longer an object of sale, with varied internet boulevards, giving them ample choice of semi-clad lassies to quench their carnal thirst. The cliché group of celebs no longer hold any awe, as they present and re-present themselves ubiquitously, making them a cheap sooq artefact.

To retain the aura, seclusion is prime.

Why not feature new talents in any genre, presenting their story and laying forth what they could deliver? The main news, in most media, centres around political issues. Whilst it might me orgasmic to some, others might be in quest of global news, which ranges from breakthroughs to literature to newer thoughts. Has any media given anyone the chance to express their personal visions?

The answer would be an emphatic “No”. The ‘media gurus’ decide what opinion should be vented, which may not pander its readers. Little have they time to look at them, as they are in ball and chain of their own weaved strategies. Well-versed articles, which has always been the mainstay of the little magazine groups, could surely find a place in mainstream media. In a country enriched by Rabindranath Tagore, Ishwarchandra Vidyasagar, Rammohan Ray, Jagadish Bose, Satyen Bose, Meghnad Saha, Ritwick Ghatak, Salil Chowdhury etc., who had a global perspective in their delivery, the media ought to bring forth young minds with global vision. They may not be popular persona. There’s always a possibility of them turning into one, given the break.

If the content embellishes the faculties of the masses, then only can a nation progress. Rather than shift them downhill, the platform should serve as vista for the future generation. Involvement of all sections of the society is a must for wider acceptance of the print media.

As much as the technological and internet boom has brought information to our finger-tips, the truth is ‘you can imbibe from the internet what is already fed in’. Any creative ideas are not always available in internet. The ‘media gurus’ relish in vomiting information cautiously, what is already in the net. It is a new form corporate marketing. Corporate can market a commodity, but not ingenuity. Critics often vouch ample research is undertaken in a corporate milieu. But that milieu has its limitations in paucity of ingenuity. Genius’ cannot be mass-produced. Media needs to relieve the confused mass in the direction of Pole Star of future. The tussle between Geocentric and Heliocentric would always be in dynamic equilibrium drawing a balance in arguments. It is equally important for a defiant, like Prometheus or Promotho, to kindle an ailing humanity out of eddies, to rise like a phoenix. It is this rock foundation, which form the bonding of a relationship, between deliverer and consumer, outside technological cacophonies of the so called ‘media gurus’.

Salvation, Religion and Insight

The primeval African community, which migrated northwards to Susiana later to form the Elamite Dynasty, the precursor of Sumerian civilization, split into Indo-Asian and Indo-European culture. Religion originated from the Indo-Asian ancestress, surmisably the Sanatan religion or maybe earlier from the Ajivika religion.

Ajivika or heterodox school of primal ism, though supposedly founded in the 5th century BCE by Makkhali Gosala, is known to be organised Śramaṇa movement by atheists, who formed distinct societies. They believed fate to script life’s events in tune with cosmic rationale, with absence of freewill. It is stated to be a la mode around the same period as Buddhism and Jainism. My personal view is, it originated earlier, as is evident by their metaphysical atomic theory, its trait pre-set by cosmic forces. This conforms Einstein’s concept of universal energy changing forms, now established by the black hole concept of energy transformation. What is common with the ensuing religions is the concept of the soul, in various forms. It is an energy form of the concept of Soham, a putative mantra which means ‘I am He’ or fusion of individual with mass energy. It is inverted from so ‘ham (the fusion of sa + aham) to ham + sa. The combination of so ‘ha hasa gives the imaginative individual, pride like a swan. It symbolizes atma or fusion of individual with mass energy. Death is mere change of form of energy mutation, as per Einstein’s black hole concept.

Jainism which tows the line of Śramaṇa movement, probably followed from the Ajivika. It is known to originate with Mahavira, known as Vardhamāna in 599 BC. At the age of thirty, Mahavira left home in pursuit of spiritual arousal, abandoning material things to become a monk. For the next twelve-and-a-half years, he practiced deep meditation and austere penance, after which, he became kevalī (omniscient).

Buddhism followed, in 563 BCE, with the same story of a rich prince Siddhartha leaving his empire, initially with five disciples (who later abandoned him), eventually finding enlightenment in Sarnath. There, when he fainted, two traders from Orissa (conversant with Pali language) gave him nutrients, to whom he preached his newfound insight. They took his teachings to Sri Lanka. The earliest book on Buddhism was written in Pali from there, forming the Hinayana cult.

Of the three primitive religions, there wasn’t an iota of idol worship. Later when Gautama Buddha moved to Sahet and Mahet on the banks of River Achiravati (known as Srabasti) to preach, he was sponsored by King Prosenjit. To survive in his kingdom, he had to adopt his teachings in line with the modish Hindu practice of idol worship, later emerging as Mahayana cult. In his twenty-four years of sermon there, by submission, he temporarily accepted the order of idol worship, which was the biggest blunder for years to come. It was the start of a ruinous saga of the Indian sub-continent.

Half-a century later, a young boy from Jerusalem came to India via the silk route. Initially he was ousted from Puri by the Hindu pundits, later went to Sarnath, Sikkim, Nepal, Leh and Ladakh to imbibe the teachings of both religions for thirteen years, which he took back as his treasure, to spell the message of humanity, much against the existing rulers. He was evicted and returned by the silk route to Shrinagar with his friends and followers, to preach the same in Rozabal, in the name of Yuz Asaf, until his death at the age of eighty years. He was later portrayed as the saviour Jesus Christ, with a fable named The Bible.

At that time, Rome was in chaos. Romans worshipped the Sun God, celebrating Saturnalia (17th to 23rd December) which involved private gift-giving, week-long partying, and a carnival air. Its concept coincided with the Pagan festival. The hexagonal concept of admission to the alter of God or change of form of energy, is nothing but a Saturnian concept of mutation of energy, be it feat, death or re-birth.

To gain control of the chaotic Rome, a fable was yarned in the name of The Bible, a character named Jesus portrayed as the saviour, whose birth was made to coincide with the festivities of Saturnalia for wider acceptance. It was written 180 years after his so-called birth.

At least they didn’t have an idol. It talked of the preaching of Ajivika, Jainism and Buddhism, which then had a wider acceptance.

On the other hand, Indo-Asian group displaced the atheist section southwards. The southeast migrants split southwards as Australian aborigines, northwards to India, mingling with the displaced Dravidians. Some spread to the northeast to China, Japan and then via Arctic Bering Strait to America as native Americans. This is confirmed by Y-linked haplogroup and mtDNA studies.

The prime reason for their superiority was non-submission to an idol, towing the line of humanism. The obeisance to an illusory idol, takes away the confidence or Soham, which is the basic of concept of Einstein’s energy conversion. It makes one weak, leading to petty quarrels with increase of inferiority complex, detrimental in path of ascension. The worship is endorsed by various imposed rituals, leading to rivalry, with no bearing to the Divine.

It is wiser to look at existence from humanist angle and endeavour to merge with other forms of energy. The black hole concept of Einstein is the path to blending the Soham with the Universal energy, atma in its switchable extents than be stuck with human jargons of God in the form of an idol. Only then can a society evolve beyond its narrow paradigms to the Saturnine path of salvation or energy fusion accepting the transmutation of its form.

আগমনী

“মা আমাদের পূর্ণ উচ্চারণ, প্রথম পুণ্য অনুভব

মাগো যেদিকে চাই, সেদিকে রয়েছ তুমি

তুমি শুভ প্রতীক, জীবনবোধের অবারিত বাসভূমি

তুমি ভোরের আলোয় ভরা পবিত্রতার চেনা মুখ

স্নিগ্ধ, শান্ত, প্রসন্নতার চিরসুখ

ভবনে থেকেও তুমি ভুবনগামী

মাগো যেদিকে চাই, সেদিকে রয়েছ তুমি

একটু চোখের আড়াল হলে অভিমানে বহুদূর

ক্ষমায় আপন তুমি মোহন বাঁশির মিঠে সুর

অন্তরে থেকে তুমি অন্তর্যামী

মাগো, যেদিকে চাই, সেদিকে রয়েছ তুমি”

এক অজানা সর্বশক্তিমানকে যুগ যুগ ধরে মানুষ কল্পনার চোখে দেখেছে। কারণ পৃথিবী সৃষ্টির আদি অনন্তকাল থেকে পূর্ব পুরুষেরা শিখিয়েছেন ক্ষমতা বাইরেও এমন কোনও শক্তি আছে যে আমাদের জীবনের গতিপথকে নিয়ন্ত্রণ করে। সেই সর্বশক্তিমানকে তাদের সর্বস্ব দিয়ে ভক্তির অর্ঘ দিয়েছে। কখনো বা এই অজানা অচেনা তীব্র শক্তিকে একাকী নিভৃত আঁধারে, কখনো বা কোনও বিগ্রহ রূপে, কখনো বা কোনও মহাপুরুষের বাণীকে পাথেয় করে ধর্মের কাছে সঁপে।

যদিও ধর্ম ইতিহাস সাক্ষী বহু ধর্ম যুদ্ধের, তাকে উপেক্ষা করেই ধর্মের প্রবক্তাদের আনুষ্ঠানিক ভক্তি-শ্রদ্ধা জানিয়েছে। রামচন্দ্রের অকালবোধন ঠাই পেয়েছে শরতের সুপ্রভাতে, ঘরের মেয়ের আরাধনায় – স্বর্গলোক থেকে মর্তলোকে, কল্পনার দেবীকে বড় কাছে পাওয়ার চারটে দিনে। শুধু কাছ থেকে পুজর অর্ঘ নিবেদনে নয়, দেবী ও তার চার পুত্র-কন্যাকে নিজের করে পাওয়া, আনন্দঘেরা উৎসবে। পুজ আসছে। ‘বাজলো তোমার আলোর বেণু’ – ভুবন মেতেছে পুজর উৎসবে। মা কল্পনার মহাবিশ্ব থেকে বাস্তবের মাতৃগৃহে ছুটি কাটাতে আসছেন।

তাই আমাদেরও ছুটি। আনন্দোৎসব। দুর্গোৎসব।

নতুন নতুন থিমে সাজাচ্ছে কাল্পনিক মাতৃত্বকে। কল্পনার দেবীর রূপ ও আঁকার পাল্টেছে, যুগের তালে তাল রেখে। নিজেরাও সাজছে নতুন বেশে, মাকে ইহলোকে বন্দনা করতে। রাগ, ক্লেশ, বিবাদ, দুঃখ ভুলে একসঙ্গে মিলতে, মায়ের আগমনী আসরে। একই ছন্দে, একই তালে, মায়ের বন্দনাগানে।

সর্বশক্তিমান তো অন্তরের শ্রদ্ধার প্রতীক মাত্র। বিগ্রহের পুজর বাইরে তো হাজারও মা লুকিয়ে আছে আমাদের মধ্যে। গৃহবধূ থেকে না-চেনা বধূ। এই মাতৃত্বের রূপ যুগ যুগ ধরে পাল্টেছে। কখনো আটপৌর শাড়ীতে জননী রূপে, কখনো বিবাহের বন্ধনের বাইরে লিভিং টুগেদার সম্পর্কে, কখনো বা গণিতের ‘ভেন ডায়াগ্রাম থিওরি’ আকারে জৈবিক সম্পর্কের ঊর্ধ্বে অন্তরের না-বলা ছন্দের নিঃশব্দ মৌনতায়। এই মৌনতায় মধ্যে অচেনা জীবনের স্পন্দন। যেখানে বাজে না-চেনা রাগ, ঝঙ্কার তোলে না-বলা মাতৃত্বের বোল। সে সুর তো আমাদের মধ্যেই। শুধু তাকে পরখ করাটাই অজানা। নিঃশব্দ মৌনতায়, আপেক্ষিকতার মোহ কাটিয়ে, অন্তরের নিভৃতে। যেখানে অজান্তে, অলক্ষ্যে বেজে চলে লেসারের কম্পন, জা মিসেল জার অজানা নতুন সিম্ফনি।

rozabal_shrineগামী দিনে এই সংজ্ঞার বিবর্তন হবে। বন্ধনের বাইরে মাদার মেরির যিশু খ্রিস্টেকে জন্মের রূপকথা আপ্লুত করবে না আমাদের মূর্খ চেতনাকে। সেদিন আরেক যিশু ইউজ আসফ নাম নিয়ে, কোনও এক রোজাবালে বসে শোনাবে আজিবক, সনাতন ধর্মের মূলকে পাথেয় করে, আকারহীন সত্যের অমৃত কথা, আগামীর দর্শন। নাই বা থাকল নাম, নাই বা দেওয়া হল রূপ। বাহাউল্লার মতো শোনাবে চিরায়িত অমৃত সত্য “কসরৎ মেঁ ওহেদৎ”। সেই তো প্রকৃত আরাধনার প্রতিমূর্তি। যে বিশ্বমানবকে বাঁধতে পারে আকারহীন, ধর্মহীন মানবতার বন্ধনে। যা দেশ, কাল, সভ্যতা ভুলে, মানুষেকে বাঁধবে বিশ্বমানবের কল্যাণে। তাকে বরণ করে বেজে উঠবে নতুন আগমনী শঙ্খ, অন্তরের মিলনযজ্ঞে। আগমনীর বন্দনাগানে।

সন্ধ্যারতির পূজার নৈবেদ্য সেদিন মিলবে না-শোনা অন্তরের ঝংকারে। মায়া-কায়া মিলেমিশে একাকার, মাতৃত্বের না-চেনা সুরের ছন্দে। নতুন আনন্দে। গভীর অন্ধকার থেকে আলোর স্পর্শে। মা তো আরাধ্য বিগ্রহের বাইরে একটা উপলব্ধি, একটা অনুভূতি। মুক্তির পথ। শান্তির পথ। চেতনার উত্তরণ। শূন্যতার মধ্যে পূর্ণতার আবেশ। সেই সময় ফিরে দেখতে হবে নিজেকে।

যতদিন না ক্ষুদ্র ব্যক্তিত্ব মিলেমিশে একাকার হয় মহাবিশ্বের অধিষ্ঠিতে, আগমনী অসম্পূর্ণ। যেখানে অস্তিত্বটা অনাপেক্ষিক। জীবাত্মার সংগে পরমাত্মার অবিচ্ছেদ্য মিলনে পূর্ণতা – একমেবাদ্বিতিয়ম ‘সো অহং’ । সেখানে আলো নেই তবু আলোর বন্যা, যেখানে গন্ধ নেই তবু সুগন্ধের ঝর্না, যেখানে কেউ নেই, তবু যেন কার অমৃতস্পর্শে দেহ মন আনন্দে শিহরিত হয়ে ওঠে প্রতি পলে। যেখানে স্তম্ভিত জাগ্রত মহাবিশ্ব বরণ করে নেয় সত্ত্বা আর আত্মাকে পরম স্নেহে। কানে কানে নিঃশব্দে শোনায় এক গম্ভীর প্রণবধ্বনি শান্তির আলোকে, মহাবিশ্বের পরম সত্যের অমৃত কথাঃ

‘ওঁ প্রত্যাগ্যানন্দং ব্রহ্মপুরুষং প্রণবস্বরূপং

অ-কার উ-কার ম-কার ইতি

ওঁ স্বর্বভূতস্থং একং বই নারায়ণং পরমপুরুষং

অকারণং পরমব্রহ্মং ওঁ

ওমিতি ব্রহ্ম ওমিতি ব্রহ্ম…’

CF BLOCK RESIDENTS ASSOCIATION, SALT LAKE CITY, KOLKATA
agomoni1

agomoni2

agomoni3

Agomoni

Private Detective: Living in Myth

Private detectives have been the in our fictions for ages. They have been the pivotal characters of riveting thrillers, hypnotised billions over decades, been the rachis behind the name, fame, survival of many national and international authors. The whodunits have made their way to celluloids, giving the viewers a grip of fictional suspense. In addition to bewitching the readers and viewers to a world of fantasy, it has generated a livelihood, to a crowd and continue to do so, who would have been defunct otherwise. As we have moved into 21st century, time has come to re-assess their fictitious incredible role in criminal investigation.

In 1833, Eugène François Vidocq, a French soldier, criminal, and crewman, founded the first known private detective agency ‘Le Bureau des Renseignements Universels pour le commerce et l’Industrie’ (The Office of Universal Information for Commerce and Industry) and hired ex-convicts. Official law enforcement tried many times to shut this agency. In 1842, the police arrested him, on suspicion of unlawful imprisonment and extracting megabucks on false pretences, after he had solved a peculation issue. He was sentenced for 5 years with a Fr 3000 fine.

In spite of falsified credentials, Vidocq is considered as having led to the concept of record-keeping, criminology, ballistics and anthropometrics. The whole business of private investigation came into practice where police were unwilling to act, or the client desisted police involvement. They also assisted companies in labour disputes, often provided armed guards, the role that is carried out by security agency today. Charles Frederick Field of United Kingdom set up an enquiry office upon his retirement from the Metropolitan Police, in 1852. Field became a friend of Charles Dickens. One of his employees, Hungarian Ignatius Paul Pollaky set up a rival agency. Through them both, private detectives secured a place in the fictional sagas. In 1840, Edgar Alan Poe created a fictitious character C. Auguste Dupin. This character was the detective in three of Poe’s stories.

Once the artistic blend of selling fictitious detectives hit the market, several authors towed the line, to create immortal fictitious characters like Sherlock Holmes, Hercules Poirot, Miss Marple. Under a colonial rule, the creative thoughts of our authors were confined to the ways of colonial masters. In keeping with their colonial slavery mind-set, they spun an array fictitious fables, centralising around the concept of singing their master’s voice. Bymokesh Bakshi, Kiriti Roy, Dipak Chatterjee, Feluda etc. were thus born to cater to the Bengali tastes, spelling the wonders that could be done by a private detective. These taradiddles became popular best-sellers, especially to the sections not well-conversant with English literature or who wanted a fresh taste in their local milieu.

When I was requested by my publisher to write my first murder-thriller CHAKRA, later translated in English as FULCRUM, a few queries buzzed in my mind.

  1. Whenever a death occurs, who investigates the case – the police or the private investigator (no matter how intelligent and modern he may be in fictitious sagas?
  2. After a murder, who would walk to a private detective, when police are there to carry out the primary investigation?
  3. Do private investigators (mind you they are normal citizens with same rights and restrictions as others) have same access to police records, forensic report etc.?
  4. Can they tap telephone conversations and access internet exchanges, i.e. social media and internet calls?
  5. Have they access bank accounts, insurance details or any other confidential details?

The answer was an obvious ‘NO’. If so, how could a private detective become the central theme of a novel, when his identity is ambiguous and apocryphal? If that is logical, in 21st century, no author could get away with some an absurd fiction. Fiction has to be realistic, believable, pertaining to the present. In conversation with a renowned figure, in an hour-long lecture to a ‘class-room student’ without any logic or know how, he further harped his credibility as a ‘Criminologist’. To my humble medical knowledge, one who is qualified in Forensic Psychiatry can call himself a Criminologist.

I thought, even if the investigation is done by known bodies at different corners of the country, there might be a mingle of persons trying to solve the murder-mystery. Each would have a positive input and finally one could imbibe those ideas and crack the final jackpot. They may not be a part of the investigative machinery. As much as the reader or the viewer is on the lookout for the murderer with the motive, he could be in lookout for the final emergent, out of lot. I also felt the customary murder weapons like a pistol, knife etc. could be sacrificed to modern scientific ways of murder based on my medical knowledge.

The end result was a maverick murder-mystery-thriller, which would keep the readers gripped until climax. Soon after CHAKRA or FULCRUM, I wrote another adrenaline charged international thriller PURSUIT and ETERNAL MAYHEM, an international thriller of scientific genome research, in light of my new concept.

For those orthodox, it might be difficult to shred their pre-formed concepts and come to terms with the harsh reality of the 21st century. But reality demands, realistic fiction, not abstruse fictitious tale-tales. We cannot be swayed by non-realistic approach to a scientific and logical investigative apparatus. With all due respects to past global best-sellers, wouldn’t it be wiser to evolve with the realistic upcoming era?
Chakra (Second Edition Front Page)

Fulcrum CoverPursuit (Low Resolution)

Eternal Mayhem

Conundrum (Front Page)

বর্তমান সমাজ, আধুনিকতার নিঃস্বতা

সামাজিক বিবর্তনের এক সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে সময় হয়েছে আরেকবার এই পরিবর্তনের নগ্ন পর্যালোচনার। বিশেষ করে নব্য লভ্য বাঙলার আধুনিকতাকে। ‘বাঙালি বা বাংলা’ বিষয়ক আধুনিকতা, বর্তমান ভৌগোলিক বাংলার মাত্র দু-আড়াইশো বছরের উপনিবেশ পর্বের অবদান। এই পর্ব একাই মহাভারতের সাপেক্ষে ‘আঠারোশো’।

ইংরেজদের মোসাহেবি করা, কলম পেশা, ‘রায় বাহাদুর’ ‘রায় সাহেব’ পদালঙ্কারে শোভিত মাছ-ভাত খাওয়া বাঙালি, কিছু কাঁচা টাকার বাবুয়ানায় ‘ফরেন’ ঘুরে হঠাত যেন সাহেব হয়ে গেল। সুট, বুট, হ্যাট, এমনকি শুদ্ধ ইংরেজি বানানটুকু না জানলেও চলবে, আদব কায়দায় সাহেবি উসৃঙ্খলতা নিয়ে, ঠাটবাট হাঁকিয়ে চললেই ‘সোশ্যাল এলিট’ হওয়া যাবে। সাহেবরা আমাদের অনেক কিছু শিখিয়ে গেছে। তার মধ্যে প্রধান চিন্তা কোরও না। স্বতন্ত্র চিন্তার বলিকাঠে নিজেকে মেলে, সামাজিক বিরাগভাজন হয়েও না। ইট ড্রিঙ্ক অ্যান্ড বি মেরি, ফর টুমরো উঁই ডাই। চিন্তা করলে যদি বা আরেকটা বুর্জোয়া ক্লাস তৈরি হয়। দেশ শাসনের পক্ষে সেটা মোটেই শুভ নয়। সাহেবরা চলে গেছে। তাদের বাবুয়ানা আজ আর নেই। কিন্তু উত্তর কলকাতার, সাবেকি পায়রা ওড়ানো বাবুয়ানার রক্ত তো এখনও বিলীন হয়ে যায়নি। পুরো অংশে বর্তমান। সাহেবদের তৈরি করা প্ল্যাটফর্ম যদি পাওয়া যায়, তো সোনায় সোহাগা। নিজেকে কষ্ট করে তো আর কিছু করতে হচ্ছে না। খালি বর্তমান চলমানতার মোড়কে তাকে সাজিয়ে নিতে হবে। বিদেশির ছাঁচে রিয়ালিটি সো আর বিকৃত মানসিকতার সিরিয়াল, তাই বেঁচে থাকার উপকরণ। বাবুয়ানার মজলিসের নতুন রূপ। ইন্টারনেটের দাপট আর মিডিয়ার প্রলাপ তো সেই মন্ত্রেই দীক্ষিত করতে সদা আগ্রহী। অক্ষমতার শিখরে দাঁড়িয়ে, রঙিন স্বপ্নের মখমলে বিছানায় নিজেকে ভাসিয়ে দাও। ওখানেই শান্তি, ওখানেই তৃপ্তি, ওখানেই মুক্তি। মধ্যবিত্ত বাঙালির সাহেবি মোড়কে বিদেশিয়ানা ঘেঁষা স্ট্যাটাসের পূর্ণতা। বাবু কালচারের বর্তমান আভরণ।

বাবু কালচারের বর্তমান রূপ দেখে সংশয় জাগে, এটাই কী বাঙালি কালচার? গরম দেশেও ড্রিঙ্ক না হলে পার্টি জমে না। মোবাইলে গার্ল ফ্রেন্ডের সঙ্গে চ্যাট না করতে পারলে কী মডার্ন হওয়া যায়? মধ্যরাতে ডিস্কও থেকে বয় ফ্রেন্ডের সঙ্গে বিলাসিতা – নব্য রঙে সেজে ওঠে আধুনিক কালচার। বাবা-মায়ের প্রশ্রয়ে ছেলে-মেয়েরা ঘরের পার্টিতে মদ্যপান করাটা আধুনিক ফ্যাসান। আর সেই বাবা যদি সমাজের কেউকেটা হয়, তাহলে তো এটাই সামাজিক রীতি, নীতি, সংস্কৃতি। ‘সেলিব্রিটির’ ভূষণে শোভিত, কাঁচা টাকার দেমাকে গর্বিত, কিংবা নেটওয়ার্কিং-এ বলিয়ান কৃষ্টি তাই বর্তমান সমাজের নিয়ামক। শাশ্বত সত্যগুলো কেমন জোলো, ম্যানমেনে। থাক না ওগুলো পড়ে ভারতীয় সংস্কৃতির ছেড়া পাতায়। ওসব ঘাঁটলে তো আর সাহেব হওয়া যায় না। তাই আধুনিক হতে গেলে ওসব পড়ে সময় নষ্ট করার মানেই হয় না। সকাল থেকে সন্ধে অবধি, সামাজিক অস্তিত্ব রক্ষার তাগিদে, ইহা-উহা করে দিনশেষে একটু মৌজ না করে, কোন পাগল সাহেবি আভরণ হাঁটিয়ে, ভারতীয় কৃষ্টি-সভ্যতা ঘাঁটতে বসে?

অবশ্যম্ভাবী পরিণতিতে গিয়ে ঠেকে অন্তরের শূন্যতা। যে সামাজিক কাঠামো বর্তমান আধুনিকতার স্তম্ভ, সেটা সরে গেলে তো অস্তিত্ব নিঃস্ব। যেন কঙ্কালের মধ্যে প্রলেপ লাগিয়ে কতগুলো শব ভূষণে, দূষণে, আলোকিত করে রেখেছে এক অন্তঃসারহীন সত্যকে। যা মৃত্যুর চেয়ে বিভীষিকার মতো তাড়িয়ে বেড়ায় একাকী, নির্জনে। তাই নির্জনতা বর্জনীয়। সেই সামাজিক কাঠামোতে যদি আত্মজকে মিথ্য বলতে শেখাতে হয়, যদি আত্মজের পাপে হাত মিলিয়ে সায় দিতে হয়, তাও গ্রহণযোগ্য। একাকীত্বের সত্য থেকে তো পরিত্রাণ পাওয়া যাবে। সেটা যে আরও বীভৎস, ভয়ঙ্কর।

সেখানে পাপ-পুন্য, ভাল-মন্দ, বলে কিছু নেই। সেখানে আছে এক ক্ষয়িষ্ণু সমাজের ওপর ভেসে বেড়ানর আপ্রাণ প্রয়াস। আধুনিকতার নিঃস্বতার মধ্যে সেটুকুই যেন বেঁচে থাকার একমাত্র পাথেয়। তবুও মাঝরাতে, একা ঘুম ভাঙা অন্ধকারে, কোন গভীর থেকে যখন ভেসে আসে অতৃপ্তির আর্তনাদ, একবারও কী মনে হয় না, আরেকবার নিজেকে দেখার? আধুনিকতার চুড়ায় বসেও নিজের নিঃস্বতা? যদি কখনো মনে হয়, সেদিন কৃষ্টি, সংস্কৃতি আর্তনাদ করবে, কবিগুরুকে বেচবার জন্য নয়, আবার নতুন রূপে পাওয়ার জন্য। মন ডুকরে কেঁদে বলবে ‘দাও ফিরে সেই অরণ্য, লও এ নগর’। সেখানেই আধুনিক সমাজের জৈবিক ব্যর্থতার আসল পরাজয়।

জননী মহাবিশ্ব

অ্যামেরিকার নারী পত্রিকায় প্রকাশিত মে-জুন ২০১৬  

“মা আমাদের পূর্ণ উচ্চারণ, প্রথম পুণ্য অনুভব। 

মাগো যেদিকে চাই, সেদিকে রয়েছ তুমি। 

তুমি শুভ প্রতীক, জীবনবোধের অবারিত বাসভূমি। 

তুমি ভোরের আলোয় ভরা পবিত্রতার চেনা মুখ। 

স্নিগ্ধ, শান্ত, প্রসন্নতার চিরসুখ। 

ভবনে থেকেও তুমি ভুবনগামী।

মাগো যেদিকে চাই, সেদিকে রয়েছ তুমি। 

একটু চোখের আড়াল হলে অভিমানে বহুদূর।

ক্ষমায় আপন তুমি মোহন বাঁশির মিঠে সুর। 

অন্তরে থেকে তুমি অন্তর্যামী। 

মাগো যেদিকে চাই, সেদিকে রয়েছ তুমি”

পুণ্য অনুভূতির জীবনবোধের উৎস ধাত্রীর ঔরস। বিশ্বব্যাপ্তির চেতনা থেকে অবারিত শান্তির কোলে পাথেয়। সেই মা শব্দটির পরিধি অসীম।

ঔরসের নিশ্চিন্ত বাতাবরণ থেকে ধরিত্রীর প্রথম আলোয় সহায়, তার ছোঁয়া তো কেবল জন্মলগ্ন থেকে নয়। জন্ম দিয়েছিলে আমাকে। স্তন-দুগ্ধ দিয়ে অন্নপ্রাশনের প্রথম অন্ন তুলে, জরা ব্যাধি থেকে আড়াল করেছিলে দুগ্ধের প্রতিরোধক শক্তির অপার মহিমায়। কথা শিখেছিলাম তোমার মিষ্টিমধুর বোলে। হাঁটতে শিখেছিলাম তোমার হাতে, হাত ধরে। প্রস্তুত করেছিলে জীবনযুদ্ধে একা চলতে। ‘মা গো মা এলাম তোমার কোলে, তোমার ছায়ায় তোমার মায়ায় মানুষ হব বলে’ 

মাতৃত্ব তো জীবন গতির নির্ধারিত চিরায়িত প্রবাহ নয়। নানা রূপে, নানা রঙে, নানা চেতনার তার প্রকাশ। জীবনের প্রতি মুহূর্তে। নানা সুর-রং-ছন্দ-অনুভবে তার বিকাশ। অবকাশের মধ্যেও, সান্ত্বনার স্নিগ্ধ শান্ত বাতাস। ‘বাবা বাছার’ বাইরেও বৃহত্তর জীবনে, তার পূর্ণতার প্রতিভাস। নাই বা রইল ‘ঘুম পাড়ানি মাসিপিসি মোদের বাড়ি এস’ কিংবা ‘আয় আয় চাঁদ মামা খোকার কপালে টিপ দিয়ে যা’ শিশুকালের ঘুম পাড়ানি গান। ভোর হলে জাগাতে নতুন চেতনায় – বিশ্বের মুখোমুখি একা। তবুও পেছন থেকে অদৃশ্য ভরসা “বাছা তোকে তো তৈরি করেছি বিশ্বের মুখোমুখি দাঁড়াবার। পারবি না, আমাকে ছাড়া?”

সেই কবেকার কথা। বহুদিন আগে বেলুড় মঠে সন্ধেটা কাটাতে গেছিলাম। গঙ্গার পাড়ে একা বসে তাকিয়ে ছিলাম দিনান্তে ক্ষীণ হওয়া সূর্যের দিকে। আস্তে আস্তে আকাশের আলো কমে আসছিল। একটা দুটো করে তারা ফুটে উঠছিল আকাশের ক্যানভাসে। গঙ্গার জল ধীরে ধীরে কালচে আকার নিচ্ছে। দূরে দক্ষিণেশ্বরের দিক থেকে একটা নৌকো পাল তুলে ভেসে আসছে। রাতের আঁচলটা আস্তে  আস্তে  হাওয়ায় উড়ে উড়ে ছড়িয়ে পড়েছে। সন্ধ্যা নামছে, ধীর পায়ে। ক্লান্ত অবসন্নতার শিথিল আচ্ছাদন বিছিয়ে। আকাশের এঘর ওঘর সেঘরের দরজা খুলে, সব ঘরেই একটা একটা করে, মৃদু তারার মোমবাতি জ্বালিয়ে দিচ্ছে।

মুগ্ধ হয়ে তাকিয়েছিলাম। হঠাৎ মনে হল, এই সন্ধ্যার সঙ্গে মায়ের যেন কোথায় যেন একটা অদ্ভুত মিল। সারাদিন হুটপাটি করে বাচ্চারা ঘরে ফিরেছে। শ্রান্ত ক্লান্ত অসহায়। মা তাদের আসার পথ চেয়ে ঘরে ঘরে দিয়া জ্বালিয়ে বসে। কখন ওরা এসে মায়ের কোলে লুটোপুটি খাবে। সন্ধ্যার আঁধার যেন মায়ের ঘন কালো চুল। মা আর সন্ধ্যা একাকার। দুচোখে হঠাৎই ভীষণ জ্বালা। চোখে জল। গোধূলির শেষ রশ্মি তখন গঙ্গার ওপর বিদায়বেলার শেষ আলোর আভা ছড়িয়ে ঢলে পড়েছে পশ্চিম দিগন্তে। রাগ ভূপালির শেষ রেশটা টেনে দিচ্ছে অস্তগামী সূর্যের নিঃশেষ হয়ে যাওয়া আলোর দিগন্তে। বর্ণহীন অন্ধকার আবার সেজে উঠছে নতুন বর্ণের আভরণে। কালো শাড়িতে ঢাকা ঘোমটা তোলা মা, সন্ধ্যাপ্রদীপ জ্বালাতে গিয়ে থমকে গেছে। ওপাশের দাওয়ায় শিশুটির কান্না তুলসীতলার প্রাঙ্গণ থেকে তাকে ফিরিয়ে এনেছে উঠোনের আঙিনায়। সেই কান্না বেলুড় মঠের সন্ধ্যারতির কাসরঘন্টার থেকেও মনকে বেশি করে নাড়া দিয়ে যায়। এ তো ছোট্ট একটা অবলা শিশুর করুণ মিনতিতে তার মা’কে কাছে পাওয়ার ডাক। এখানেই রয়েছে জীবনের আসল সন্ধ্যারতি। পূজার নৈবেদ্যর মধ্যে নয়। সন্ধ্যারতির পূজার নৈবেদ্য যেন, কোথায় মিলেমিশে গেছে, এক না শোনা অন্তরের ঝংকারে। মায়া-কায়া মিলেমিশে একাকার, মাতৃত্বের  না-চেনা সুরের ছন্দে। নব-রূপে নতুন আনন্দে। মনের গভীর অপূর্ণ অন্ধকারে আলোর স্পর্শে।

মোহন বাঁশিটা নিজের এক চিলতে আস্তানা থেকে বেরিয়ে এসেছে, বিশ্ববাসীর প্রশস্ত আলোকে, সারদা মায়ের অপার স্নেহের করুণায়। মাতৃবন্দনার প্রতীক, দেবী দুর্গা থেকে কালী নতুন আভরণে সাজছে। নতুন বেশে। প্রতীক তো আমাদেরই তৈরি বিগ্রহ, না চেনা অন্তর্যামীকে নতুন ভাবে চেনার। রূপের ঊর্ধ্বে অরূপকে, নতুন ভূষণে সাজিয়ে, নতুন সুর পূজার থালা থেকে অবচেতনের বদ্ধ কুঠরিতে। কখনো কালী মন্দিরে দেবীর বন্দনাগানে ‘মা কী আমার কালো রে…’ কখনো দুচোখ ভাসিয়ে হৃদমাঝারে কালীমূর্তির ধ্যানে ‘এ কালো সে কালো নয় গো শ্যামা, ভুলাবি কী মা মায়ার জালে?’  কৃষ্ণভক্তরা তাদের সুরে তাল মিলিয়ে গায় ‘কালাচাঁদের রূপ দেখলে কী আর কেউ ওকথা বলতে পারে?

কিন্তু মা তো আরাধ্য বিগ্রহের বাইরে একটা চেতনা, একটা অনুভূতি।

মুক্তির পথ।

শান্তির পথ।

চেতনার উত্তরণ।

শূন্যতার মধ্যে পূর্ণতার আবেশ।

সেই চেতনা নিজস্ব পরিমণ্ডল থেকে সেজে ওঠে মাতৃভূমির আরাধানায়। তাই বিবেকানন্দ কন্যাকুমারীতে বসে দেখতে পারেন অন্য এক মা’কে। জন্মভূমি মা। ভারত মাতাকে। যা, যে কোনও দেশের, যে কোনও জাতির ক্ষেত্রে সমান ভাবে প্রযোজ্য। ‘জননী জন্মভূমি স্বর্গদপি গরীয়সী’। কত যুদ্ধ লড়া হয়েছে এই জন্মভূমি ধাত্রীর জন্য। কত লোক কুর্বান দিয়েছে মাতৃভূমির মাটিতে স্বাধীনতার জন্য। ‘কলজে তোমার খাক হয়েছে মায়ের দেখে বেইজ্জত, ভাইরা লাথ কুত্তা বনে জালিম খানায় দেয় মদত, কেউ বা বলে হিন্দু বুলি, কেউ বা বলে মুসলমান , আল্লা হরি খুন হয়েছে চুপ রয়েছে দাস জবান’সেই মায়ের ডাকে একদিন বেজে উঠেছিল স্বাধীনতার দামামা এক সুস্থ জীবনের স্বপ্নে ‘স্বাধীনতা তুমি উঠনে ছড়ান মায়ের শুভ্র শাড়ির কাঁপন’– সেই মুক্তির পথ তো দেশমাতৃকার প্রতি ভালবাসা আর প্রণাম।

দেশাত্মবোধক চেতনা একদিন ছড়িয়ে বিশ্বের আঙিনায়, নব চেতনায়‘বিশ্বজন আমারে মাগিলে কে মোর আত্মপর, আমার বিধাতা আমারে জাগিলে কোথায় আমার ঘর?’  সেই চেতনার আলোকে কবে ধাত্রী ধরিত্রী হয়ে যায় অজ্ঞাতে, তখনই স্থান, কাল, সময়ের সাঁকো পেরিয়ে বিশ্ব চেতনার নতুন জাগরণ। মানবিকতার স্ফুরণ। মানুষের প্রতি শ্রদ্ধা। ‘জীবে প্রেম করে যেই জন, সেই জন সেবিছে ঈশ্বর’ সে তো বিরাট বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের প্রতি প্রগাড় ভালবাসা। সেখানেই ব্যাপ্তি। অবচেতনের আঁধার পেরিয়ে, চেতনার আলোকে ধৌত হয়ে, প্রেমের পথে উত্তরণ।

তবুও তো চেনা হল না তাকে। কিছুটা উপলব্ধি করে দ্বন্দ্বের মধ্যে ঘুরপাক খাওয়া। অস্তিত্বে ধোঁয়াশা। তাই নিরুপায় হয়ে আবার নিজেকে সঁপে দেওয়া ‘সন্ধ্যা হল গো ও মা, সন্ধ্যা হল বুকে ধর, অতল কালো স্নেহের মাঝে, ডুবিয়ে আমায় স্নিগ্ধ কর’ – এখানেই পরাজয়। অন্ধকারে আরোহণের ব্যর্থতা। দ্বন্দ্বের সামনে দাঁড়াবার ভয়। যেখানে আপেক্ষিক স্বত্বা ঘুরপাক খাচ্ছে চেতনার চোরাবালিতে। এই দ্বন্দ্ব অতিক্রম না করে, নিজ হুতাগ্নিতে না জ্বলে, তো নির্বাণে পৌঁছন যায় না।

হাত ধরে গুটি গুটি পায় যে হাটতে শিখিয়েছিল, সে তো সীমারেখা বেঁধে দেয়নি কোথায় থামতে হবে। পথ কণ্টকাকীর্ণ। চোরাবালিতে পদে পদে স্খলনের আশংকা। জিহাদ। অস্তির সংগে নাস্তির টানাপোড়ন। শ্লেষ, অবজ্ঞা, ব্যর্থতা, পরিত্যাগ। আমিত্বমুখি চেতনার আত্মসমর্পণ। সত্তার কোলে। শুধু একটাই নিশানা। এগিয়ে যাওয়া ছেলেবেলার চাঁদমামার ছায়াঘেরা বনাঞ্চলের আঁকা বাঁকা মেঠো পথে এ পথ যে চলার পথ, থামার পথ নয়…

বারবার ফিরে ফিরে দেখতে নিজেকে। যতদিন না ক্ষুদ্র ব্যক্তিত্ব মিলেমিশে একাকার হয়ে যায় মহাবিশ্বের অধিষ্ঠিতে, যেখানে অস্তিত্বটা অনাপেক্ষিক। জীবাত্মার সংগে পরমাত্মার অবিচ্ছেদ্য মিলনে পূর্ণতা- একমেবাদ্বিতিয়ম ‘সো অহং’ । সেখানে আলো নেই তবু আলোর বন্যা, যেখানে গন্ধ নেই তবু সুগন্ধের ঝর্না, যেখানে কেউ নেই, তবু যেন কার অমৃতস্পর্শে দেহ মন আনন্দে শিহরিত হয়ে ওঠে প্রতি পলে। যেখানে স্তম্ভিত জাগ্রত মহাবিশ্ব বরণ করে নেয় সত্ত্বা আর আত্মাকে পরম স্নেহে। কানে কানে নিঃশব্দে শোনায় এক গম্ভীর প্রণবধ্বনি শান্তির আলোকে, মহাবিশ্বের পরম সত্যের অমৃত কথাঃ

‘ওঁ প্রত্যাগ্যানন্দং ব্রহ্মপুরুষং প্রণবস্বরূপং

অ-কার উ-কার ম-কার ইতি

ওঁ স্বর্বভূতস্থং একং বই নারায়ণং পরমপুরুষং

অকারণং পরমব্রহ্মং ওঁ

ওমিতি ব্রহ্ম ওমিতি ব্রহ্ম…’

বাংলা সংস্কৃতি একবিংশ শতাব্দীতেঃ প্রাসঙ্গিক রবীন্দ্রনাথ

রবীন্দ্রনাথের জন্মের দেড়শো বছরেরও বেশি সময় অতিক্রম করার পর একবিংশ শতাব্দীতে বাংলা সংস্কৃতির দিকে ফিরে তাকাবার ইচ্ছেটা থাকেই।

আমি অন্তত আজকের প্রতিষ্ঠিত অস্তিত্ব সংকটে জর্জরিত কোনও ‘মহান কেউকেটা’ সংস্কৃতির বাহক নই যে, কালচক্রে, টাইম মেশিনে নিজেকে স্থগিত, রুদ্ধ, আবদ্ধ করে বলব “রবীন্দ্রনাথ ছাড়া তো আমরা কিছুই ভাবতে পারি না।” সেটা রবীন্দ্রনাথের মহত্বের কাছে নতি স্বীকার, না নিজেদের দৈন্যকে আড়াল করার চেষ্টা, নাকি নিজেদের শূন্যতাকে রবীন্দ্রনাথের মলাট দিয়ে পাতে দেওয়ার যোগ্য করে তুলতে চাওয়া- বোঝা শক্ত। রবীন্দ্রনাথের মহত্ব নিয়ে বিশদভাবে লেখা ও বলা হয়েছে। তাই ওনার প্রতিভা বা সৃজনীশক্তি সম্বন্ধে কিছু বলা নিষ্প্রয়োজন। প্রাসঙ্গিক তাঁরা, যাঁরা রাবীন্দ্রিক অলংকারে ভূষিত হয়ে ক্ষয়িষ্ণু বাংলা তথা বাঙালি সংস্কৃতির বাহক হয়ে দাঁড়িয়েছেন। প্রশ্ন জাগে, রবীন্দ্রোত্তর যুগে বাংলা সংস্কৃতি কতখানি এগিয়েছে।

তথাকথিত গৌরবোজ্জ্বল বাংলা সংস্কৃতির অগস্ত্যযাত্রা বেশ কিছুদিন আগেই শুরু হয়েছিল। বিশ শতকীয় কুলীন স্বর্ণযুগের অবসানে তা এক নতুন মাত্রা পেল। একবিংশ শতাব্দীতে কিছুটা এগনোর পর বেশ বোঝা যাচ্ছে, দেশি মিডিওক্র্যাটদের মধ্যমেধার দাপটে সেই সংস্কৃতি যৌবনের অন্তেই জীবনের শেষ প্রান্তে এসে পৌঁছেছে। প্রৌঢ়ত্ব বা বার্ধক্য জাতীয় কোনও বিশেষ পরিণতির তোয়াক্কা না করেই। ‘বাঙালি বা বাংলা’ বিষয়ক নাগরিক আধুনিকতা, যা একান্তই কলকাতা-ভিত্তিক, তা বর্তমান ভৌগোলিক বাংলায় মাত্র দু-আড়াইশো বছরের উপনিবেশ-পর্বের অবদানমাত্র। এই পর্ব একাই মহাভারতের সাপেক্ষে ‘আঠারোশো’। তার আর কী-ই বা দরকার, দু-দিক থেকেই? গাঢ় আঁধারের এক সুদৃশ্য উত্তরীয় জড়িয়ে সমগ্র বাঙালি ক্রমশ কৈশোরের উচ্ছ্বাসে গোগ্রাসে গিলছে নিঃশেষ হয়ে যাওয়া সেই সংস্কৃতির উচ্ছিষ্ট। পুরনো দিনের কথায় আক্ষেপ আর অবসরে অশ্রুমোচন। কবিগুরুর জন্মদিন বা মৃত্যুদিনে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন, তার ফাঁকে রামকৃষ্ণ-বিবেকানন্দর সঙ্গে ঋত্বিক-সত্যজিৎ সমেত উত্তমকুমার, কিশোরকুমার আর পঞ্চম-সন্ধ্যা পালন ছাড়া আজ কি বাঙালির কিছুই দেওয়ার নেই! খিদে-তেষ্টার মতোই স্মরণ-মনন থাকা প্রয়োজন, কিন্তু তাতেই আটকে গেলে তো সৃষ্টি থাকে না।

এন্টার্টেনমেন্টের আঙিনায় ছোটবেলার চেনা সুরগুলো এখনও স্বর্ণযুগের মুকুট পরে ঘোরাফেরা করছে, কিছুটা বিবেক আর কিছুটা কথকের ভূমিকায়। তাল মিলিয়ে দুঃসহ টিভি থেকে বেরিয়ে আসছে নানা ঢঙে রবীন্দ্রসংগীত আর স্বর্ণযুগের উচ্ছিষ্ট বা তার অংশবিশেষ। এই সুরগুলো তো বহুদিনের চেনা। কিন্তু কোথায় যেন একটা অসংলগ্ন ঝংকার ছন্দপতন ঘটাচ্ছে চেনা সুরের না-চেনা ব্যঞ্জনায়। থমকে দিয়েছে সুরের স্বাভাবিক মূর্ছনা। ইন্দ্রিয়ে নির্বাক অসহনীয় যন্ত্রণা। সুর তো প্রাণ স্পর্শ করা ছন্দের ব্যঞ্জনা। অথচ ব্যঞ্জনা আছে, সুর নেই। চাটুকারিতার চাকচিক্য আছে, প্রচারের ধামাকাও আছে, কিন্তু প্রাণ নেই। হার্টবিট বাড়ানোর উপকরণ থাকলেও, পরিবেশ হৃদয়হীন। বিবর্তনটা অবশ্যম্ভাবী জেনেও, ট্র্যানজিশনটা কেমন যেন সুরহীন যন্ত্রাংশের ক্যাচক্যাচে আওয়াজ। মডার্ন রবীন্দ্রসংগীত। রবীন্দ্রনাথকে আধুনিক বাঙালি সংস্কৃতির অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে কাঁটাছেড়ার নতুন নাম নাকি ইম্প্রোভাইজেশন, তবে চর্চায় নিশ্চিত মূঢ়জনের থিসিস কালচার। যাদের ম্লান, মূক মুখে একদিন ভাষা জোগানোর প্রতিজ্ঞা ছিল।

তবে কি বুড়ো হয়ে গেছি? ফেলে আসা অতীতের স্মৃতি-বিস্মৃতি থেকে নতুন সুরে আর জাগতে পারছি না? স্বর্ণযুগের পরে কী শুধুই রাবীন্দ্রিক অশ্রুমোচন? মেনে নিতে মন চায় না। রবীন্দ্রকালেই তো অতুল-দ্বিজেন্দ্র-নজরুল প্রমুখের তালে মেতেছিল বাংলা।

এ তো বেশিদিন আগের কথা নয়। গীতিরস মিশে যেত ভাবের অনুভবে। এরা কেউ রবীন্দ্রনাথ, নজরুল বা অতুলপ্রসাদ নন। গৌরীপ্রসন্ন মজুমদার, শ্যামল গুপ্ত, ভাস্কর বসু, সলিল চৌধুরী বা পুলক বন্দ্যোপাধ্যায়। তাই থিরুমলের কণ্ঠে আধুনিক গান চিরায়িত সত্যের বাণী শোনাত ‘তোমার ভুবনে মাগো এত পাপ…’ কখনও আবেগে প্রেমিক যুগল গঙ্গার বুকে ভাসতে ভাসতে গেয়ে উঠত‘কে প্রথম কাছে এসেছি’ বা সলিল চৌধুরী সাজিয়ে তুলতেন সন্ধ্যার আবেশে মোড়া চিরশান্তির বনলতাকে-‘শ্যামল বরণি ওগো কন্যা…’ সুরকার, গীতিকারের কল্পনাকে ভাসিয়ে নিয়ে যেত দেশ-কালের পরিধি ছাড়িয়ে। হেমাঙ্গ বিশ্বাস থেকে কমল দাসগুপ্ত – এক এক করে উঠে এসেছে প্রতিভা। রাইচাদ বড়াল, সলিল চৌধুরী, অনুপম ঘটক, সুধীন দাশগুপ্ত, নচিকেতা ঘোষ, অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়। সলিল চৌধুরীর সৃষ্টির পিছনে অন্য এক গণ-সুরের অভ্যুত্থান – অরুণ বসু, মন্টু ঘোষ, দ্বিজেন মুখোপাধ্যায়, হেমন্ত মুখোপাধ্যায়। জাদু ছড়াচ্ছে একদল তরুণ তুর্কির ক্ষুরধার লেখায়, তাঁর স্ত্রী জ্যোতি চৌধুরীর নিভৃত আশ্রয়ে। ষাটের গোড়ার দিকে ওয়েস্টার্ন সিম্ফনির আঙ্গিকে গড়ে উঠল নতুন ধাঁচের জীবনমুখী গান – অরুণ বসুর তত্ত্বাবধানে, রুমা গাঙ্গুলির নৃত্য পরিবেশনায় ক্যালকাটা ইয়ুথ কয়ার, যা ক্রমে বিকশিত হল পরিমল সেনের দক্ষ পরিচালনায়। মানুষের গান। জীবনের গান। প্রতি মুহূর্তের সুরমূর্ছনা এক অ-রাবীন্দ্রিক বিন্যাসে। সমান দক্ষতায় উঠে এল মার্গীয় রসবোধ। কখনও নিখিল বন্দ্যোপাধ্যায়, কখনও রবিশঙ্কর, কখনও আলি আকবর, আল্লারাখা, ভি জি যোগ, বড়ে গোলাম আলি খান সাহেব থেকে বিসমিল্লা খান। কিংবদন্তির প্রাচুর্য অবিস্মরণীয় সৃষ্টিমাধুর্যে ভরিয়ে দিতে লাগল অনভূতির বাসনা। বুধাদিত্য মুখোপাধ্যায়, জয়া চৌধুরী, মণিলাল নাগ – অতীত যেন বর্তমানের হাওয়ায় পাখনা মেলে ভেসে যাচ্ছিল ললিত গৌরী থেকে বাসন্তী কেদার হয়ে ভূপনাথ, শাওনি কল্যাণে। শুভ্র বরণ এক অনন্ত সময়ের সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে নীরবতার বাতাবরণ সরিয়ে, সুরের সূক্ষ্ম কারুকাজ সাজিয়ে চলেছে একদল যুগস্রষ্টা। প্রভাতের স্তোত্র থেকে সন্ধ্যার দেবারতি। সুরের আরাধনার সময়ও যেন সুরকেই বলছে ‘তুমি আমার ভোরের বেলা ঝিম দুপুরের দানশেষ বিকেলে লালের ছোঁয়া নীল তারাদের গান’

সেই হারিয়ে যাওয়া তারাদের ভিড় থেকে, অনন্ত সময়ের কিছুটা ব্যাপ্তি পেরিয়ে, সেই ‘নীল তারাদের গান’ কি কেউ আজও খোঁজে? শুধু আমাদের মতো কালহীন সময়ের মাঝদরিয়ায়, অকুলে ভাসা কিছু লোক ছাড়া? অতীতের পালছেঁড়া দমকা হাওয়ায় ভেসে যাওয়া নৌকোটা যেন অকুল সমুদ্রে ভাসছে, নোঙরের আশায়। ক্ষণিক আয়ুর মধ্যে প্রাণ খুঁজছে বর্তমানের কাছে। স্নেহের দাবিতে স্মৃতিকে পিছনে সরিয়ে আশ্চর্য অন্ধকারের মধ্যে হাতড়ে বেড়াচ্ছে একটা অস্পষ্ট অবয়ব। নতুন ছবি। নতুন চিত্রপটে যা ভাসিয়ে নিয়ে যাবে জীবলোকের চাওয়াকে এক নির্দিষ্ট মোহনায়। খালি মোহনার ঠিকানাটা এখনও জানি না। তারাদের পূর্ণতার আস্ফালনে তো শুধুই শূন্যতার রাগ শুনে চলেছি। হাজার লোকের ভিড়ে কোথায় যেন অন্তরের নির্জনতা আজ গ্রাস করছে। যা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছি এক বেলাভূমির তেপান্তরে, নির্জনে। সহস্রকোটি গাছের বনাঞ্চলে। একটু রং চাই। একটু ছন্দ চাই। একটু সুর চাই। নাই বা হল দয়িতার হাতে হাত রেখে ‘আকাশ পানে চেয়ে চেয়ে, সারা রাত জেগে জেগে’ স্বপ্ন দেখা। দমকা হওয়ার মতো নতুন সুরের ব্যঞ্জনা এঁকে যে লোকটি এসেছিল, ‘এই যে দেখেছি আবছায়াটা লাগছে ভালো, ঘরের কোনে একটি মাত্র মোমের আলোকার তার কী? আমরা যদি এই আকালেও স্বপ্ন দেখি’, সেই সুমনও স্বপ্ন হারিয়ে অস্তিত্ব সংকটে মাঝ দরিয়ায় ঘুরপাক খাচ্ছেন। ভোল পাল্টে, অশুভ আঁতাঁতে, সর্বসৃষ্টি বিসর্জন দিয়ে, দেশোদ্ধারের কনফিউজড স্লোগানের কালচক্রে হারিয়ে গেলেন। অকুলে হাল ধরার অক্ষমতায়, নাকি আত্মজিজ্ঞাসার আতঙ্কে।

বিভূতিভূষণ, প্রেমেন্দ্র মিত্র, জীবনানন্দ, এক নতুন চেতনার স্ফুরণ। অনেকাংশে রবীন্দ্রনাথের থেকেও এগিয়ে। কিন্তু মানসিক দাসত্বের শৃঙ্খলে আবদ্ধ বাঙালি এদের থেকে সাহেবি উপাধিকে বেশি গুরুত্ব দেয়। তাই কালচক্রের আবর্তনে এরা ম্রিয়মাণ। ফাইন্যানসিয়ালি এরা নন-বেনিফিসিয়াল। তাই ওদের  ভুললে ক্ষতি নেই। বরং আন্তর্জাতিক রবীন্দ্রনাথকে পাকড়ে যদি কিছু কামিয়ে নেওয়া যায়, সেটাই শ্রেয়। কবিগুরু তাই সৃষ্টির দূত থেকে বাণিজ্যিক ভূতে রূপান্তরিত হলেন। বাড়ল সাংস্কৃতিক তালকানাদের আধুনিকতার উচ্ছ্বাস। বো-ত-লপুর হয়ে গেল এলিটদের কালচাঁড়াল পীঠস্থান। নাই বা পড়া হল রবীন্দ্রনাথ। নাই বা বোঝা হল আন্তর্জাতিক-তাকে। রাব-ইন্ডিক উত্তরীয় চড়িয়ে স্কচে চুমুক দিলে স্ট্যাটাস বাস্তবিক বাড়ে, তবে পুরুষানুক্রমিক হিসেবেই খেয়াল রাখবে, রবিটবি যেন শখের হোমিওপ্যাথি আর জ্যোতিষের থেকে বেশি নম্বর না পায়।

সৃষ্টি যখন মিডিয়ার ঘেরাটোপে, যখন লাখ-লাখের পাবলিসিটি, ব্যানার-ফেস্টুন লাগিয়েও ছবি বাজারে চলেছে না, তখন খারাতপ্ত অস্তিত্ব সঙ্কটে হঠাৎ শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের ব্যোমকেশ জাদু ছড়াল। ভাসিয়ে দাও সেই স্রোতে নিজেদের। বক্স অফিসে ভরাডুবি হবে না। শরদিন্দুর গোয়েন্দার চর্বিত-চর্বণ করে সিরিজ বানিয়ে বাজারে ছাড়তে থাক। মধ্যরাতের পার্টি আর পেজ থ্রি-তে অস্তিত্বটুকু বেঁচে থাকবে। আর কিছু না হোক, খেয়ে-পরে টিকে থাকা যাবে। ব্যোমকেশ ছাড়া শরদিন্দুর আর কিছুই নেই!

কর্পোরেট আবহে কিছু সাহিত্যিক ও কবি বেরিয়ে এলেও, শেষ পর্যন্ত বাজারি কাটতির দিকে চেয়ে তাদের কেউ গুণগত মান ধরে রাখতে পারেননি। সমরেশ বসু, রামাপদ চৌধুরী, গৌরকিশোর ঘোষ, নাবারুণ ভট্টাচার্য বা সন্তোষ ঘোষ, সুবোধ ঘোষ, সুনীল-শক্তি, শীর্ষেন্দু-অতীন, বিমল করের পর বাংলা সাহিত্যও পেশাগত দোলাচলে ভরাডুবির মুখে। ১৯৪০-এ যে লিটল ম্যাগাজিন আন্দোলন শুরু হয়েছিল, তা তীক্ষ্ণ-তীব্র হুঙ্কার ছাড়ল ষাটের দশকে। বাংলার নিজস্ব আঙ্গিক ও স্বাতন্ত্র্য নিয়ে। অসীম রায়, দীপেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়, হাংরি গ্রুপের মলয় ও সমীর রায়চৌধুরী, অরুণেশ ঘোষ, শৈলেশ্বর ঘোষ, বাসুদেব দাশগুপ্ত, তুষার ও ফাল্গুনী রায়, সুভাষ ঘোষাল, সুব্রত মুখোপাধ্যায়রা কর্পোরেট-পুষ্ট লেখক নন, তাই এদের পরিচিতিও সীমিত। ১৯৬০ থেকে ১৯৮৪ পর্যন্ত এই টানাপোড়েনের মধ্যে লেখকদের সহায় ছিল যুগান্তর ছাড়াও বেশ কিছু প্রকাশক সংস্থা। আশির দশকে সেই যুগান্তর ও অন্যরা ক্রমশ বিলীন হওয়ার পর থেকে কর্পোরেট যাদের প্রজেক্ট করছে, তারাই সাহিত্যিক। তার বাইরে সাহিত্য বলে কিছু হয় না। বলা যায়, একাধিপত্যের সেই দিন থেকেই শুরু হল বিপর্যয়। নব্বইয়ে বিশ্বায়নের হাত ধরে গড়ে উঠল নির্দিষ্ট ধাঁচে লেখক তৈরির কারখানা। সাহিত্যের বিবর্তন রীতিতে অনেক নাম বাজারে বিক্রিও হল। অনেক সাহিত্যিক বেশ সন্দেশের ছাঁচে তৈরিও হল কর্পোরেট ভাষার স্লোগানে নিজের জায়গা বুঝে নিতে। কিন্তু কেউ রেখাপাত করতে পারল না। অথচ রসেবশে থাকা বাঙালি নতুন কিছু খুঁজছে, যা এরা দিতে অপারগ। সেই পাবলিসিটি এল, কিছু আবার স্টারও হলেন।

কিন্তু সাহিত্য তো স্টারডম নয়, কালানুগ নিজস্বতা। চিন্তাধারাকে কর্পোরেট-শোভন মখমলে ফেলে নাচনির স্টারডম সমেত বিক্রি করে খ্যাতনামারা আরও প্রখ্যাত হলেন। ঠ্যাঙে দড়ির জ্যাঠামিতে হারিয়ে গেল সৃষ্টি। গায়েব হল কৃষ্টি। সুদৃশ্য ওড়না জড়িয়ে ভূরি ভূরি অর্থহীন লেখা বিক্রি করে বছরের আয় গুনলেন কর্পোরেট। নাম, টাকা, স্টারডমের বিনিময়ে সাহিত্য কখন ব্যাকসিট নিয়েছে তা বুঝতে পারলেন না। কিংবা চাইলেন না। যুগান্তকারী সৃষ্টি অর্থের মায়াজালে হয় না। তা তখনই সম্ভব, যখন একান্ত নিজস্ব তাগিদে অন্তর থেকে বেরিয়ে আসে। রবীন্দ্রনাথের লেখা আজকের যুগেও প্রাসঙ্গিক- কেন? হয়ত স্থান-কালের গণ্ডী ছাড়িয়ে চেতনার ব্যাপ্তিতে, সময়ের ঘেরাটোপ থেকে বেরিয়ে, মুক্ত বিহঙ্গের মতো অনেকের সঙ্গে ভেসে বেড়াতে পারে, তাই। কর্পোরেট মায়ায় সে অবকাশ কোথায়?

সাবালক বাঙালি আবার নাবালকের আনন্দ ফিরে পেল। হারিয়ে গেল সেরিব্রাল ম্যাচিওরিটি, অর্থাৎ মানসিক সাবালকত্ব, মানসিক বিস্তৃতি। সাহিত্য তখনই সাবালকত্ব অর্জন করে, যখন অজানা অচেনা দিকগুলো তার মধ্যে দিয়ে প্রকাশিত হয়। এখন বাঙালির সময় সিরিয়াল, মিরাক্কেল, বিগ বস, ভুল তথ্যসমৃদ্ধ দাদাগিরি আর স্পন্সর্ড মিডিয়ার চর্বিতচর্বণে ভারাক্রান্ত। বাঙালি ভুল শিখছে। ক্ষতি নেই। মিডিয়ায় স্টার হচ্ছে। চিন্তাধারা এখন ফেসবুকে, সেলফি আর হোয়াটস অ্যাপে সীমাবদ্ধ। সৃষ্টির আগে সেলিব্রিটি হতে হবে, তাই সাতসকালে বোঁচকা কাঁধে বেড়িয়ে পড় মিডিয়া-বাবুদের পদলেহন করতে। গতিহীন ঘূর্ণিপাকে চিন্তাশক্তি ফিউজড- হোয়াট বেঙ্গল থিঙ্কস টুডে, ইন্ডিয়া ফরগট ইয়েস্টার্ডে।

আমরা একবিংশ শতাব্দীতে পৌঁছে গেছি। বিবর্তন হয়েছে চিন্তাধারায়। বিবর্তন হয়েছে সাহিত্যেও। প্রশ্ন ওঠে, কোনটা সমাদৃত? কোনটা হাইপ? কোনটা পূর্ণতা? কোনটা বিক্রির পণ্য? সেই চিন্তাশক্তি কেড়ে নিয়েছে ইডিয়েট বক্স। রূঢ় সত্যটা বাঙালি দেখতে চায় না, ভয় পায়। তারা ভালবাসে আলো-আঁধারিতে থাকতে। কেচ্ছার সরলতাকে আঁকড়ে সত্যকে এড়িয়ে যেতে। রূঢ় বাস্তব যে বড় নিষ্ঠুর, কঠোর, ভাবাবেগ বিচ্ছিন্ন। তাই অর্থ থাকতেও অস্তিত্ব-সঙ্কটের শিকার কিছু ‘নব্য বাবু’ এল কালচারাল মজলিসে নজরানা ছুড়তে, মেহফিল সাজাতে। দিনে-রাতে-প্রকাশে-অলক্ষ্যে। স্পন্সর্ড মিডিয়ার কারুণ্যে কিছু সেলিব্রিটি বাজারে বিকোতে এল। সৃষ্টিকে পিছনে ফেলে সেই দিনরাতের মেহফিলে নিজেদের বিক্রি করার জন্য বহু মিডিওক্রিটি আশ্রয় নিল। স্টার হল। একটু লাইমলাইটের জন্য যে কোনও মূল্যে বিকোতে প্রস্তুত। আচ্ছা, রবীন্দ্রনাথ কী সেলিব্রিটি ছিলেন? নিশ্চয়ই নয়। ‘এ তো হাটে বিবার নয়… কণ্ঠে দিব আমি তাঁরে… যারে বিনামূল্যে দিতে পারি’ নজরুলের আভরণে তারা নতুন সুর ভাঁজল ‘আমি অর্থের গান গাই, আমার চক্ষে টাকাই সত্য, টাকা ছাড়া আমি নাই’  সাহিত্যের নামে রবীন্দ্রনাথ বিকোচ্ছে স্পন্সারশিপের নিলামে। তাঁর ভুল তত্ত্ব বিক্রি হচ্ছে। বেস্টসেলার হচ্ছে। “ওনাকে পড়েই তো রবীন্দ্রনাথকে জানলাম”- হায় পোড়া কপাল দিকশূন্য বাঙালির। এখনও চিনতে শেখেনি শূন্যতার কেন্দ্রবিন্দু? তোতা কাহিনির বাইরে আসল সত্যকে! মিডিয়া জিনিয়াস বানাতে পারে না। তাই রাবীন্দ্রিক দর্শন নয়, রাবীন্দ্রিক কেচ্ছা হুড়মুড়িয়ে বেস্ট সেলার। এখন প্রশ্ন ওঠে, তাহলে কী এটাই বাংলার সাহিত্য? স্বামী বিবেকানন্দ আর নিবেদিতার রাসলীলা! কিংবা কথামৃত ভুলে রামকৃষ্ণর নারী দর্শন? ‘সৃষ্টি তুমি আত্মদহনে জ্বল, যদি নতুন সুরে, নতুন তানে, না কিছু বলিতে পার’

তবে কী সে যুগেই সব ছিল? আজ এই যুগে কি আর কিছুই নেই? যদি তাই হয়, তবে কেন আজ এই বিক্ষিপ্ত মন!

সময় হয়েছে রবীন্দ্রনাথ থেকে বেরিয়ে রাবীন্দ্রিক চেতনার ঊর্ধ্বে উঠে নতুন কিছু বলার। সেখানেই কৃষ্টির প্রগতি। চিত্তের মুক্তি। আগামী সংস্কৃতির নতুন চিত্রগাথা। নতুন প্রাণের জোয়ারে ভাসা বলিষ্ঠ চিন্তা। যা স্পন্দন তুলবে নিঃশব্দে, নীরবে, মনের দেওয়ালি উৎসবে। না হলে রবীন্দ্রনাথকে সঙ্গী করেই ক্রমশ বাঙালি সংজ্ঞার অপমৃত্যু ঘটবে।

বন্ধুবর আশিস চট্টোপাধ্যায়ের কলমে তাই জীবন জিজ্ঞাসার স্বপ্ন আবার উঁকি দেয়ঃ

‘জীবনের ঝরে পড়া ধানগুলো

খুঁটে খুঁটে খেয়ে চলে স্মৃতির পাখিরা

ওগো ব্যাধ তুলো না গাণ্ডীব 

তার চেয়ে হও তুমি নীল বাতিঘর 

দেখাও দিশার আলো নিশার আঁধারে’

অন্ধকারে দমকা আলোর রোশনাইয়ের মতো সেটাই তো আগামীর বীজমন্ত্র। খরাতপ্ত আকালের মধ্যে বর্ষার না-চেনা মেঘমল্লার।

কবিগুরুর স্বপ্ন, তাঁর আড়ম্বরের মধ্যে নয়। নতুন চেতনার স্ফুরণে। ‘এখন করিছে গান সে কোন নতুন কবি তোমাদের ঘরে?’ দেড়শো বছর পরেও সেই বিশ্বচেতনার স্রষ্টাকে খুঁজছি সাহিত্যের পাতায়, সৃষ্টির কাব্যগাথায়। যা প্রচারের দাপটে প্রকট না হয়েও সদা প্রোজ্জ্বল। হাজার ব্যর্থতার মধ্যেও পথের দিশারি। আগামীর পাথেয়। নাই বা রইল উচ্ছ্বাসের ঘনঘটা। নাই বা রইল রঙিন বর্ণচ্ছটা। ধূসর বর্ণহীন অচলায়তনের অনাড়ম্বরেই হোক সেই ‘ব্যথার পূজার সমাপন’নতুন চেতনার উদ্ভাসে। কবিগুরুর ইতিহাস সাক্ষী রেখেই আগামী সীমা-অসীমের ধোঁয়াশা থেকে মুক্ত হয়ে নির্দিষ্ট মোহনায় পৌঁছতে পারবে। দোলাচলের বাইরে জীবাত্মা আর পরমাত্মার যুগলবন্দিতেই হবে সাধনার পূর্ণতা- একমেবাদ্বিতিয়ম ‘সো অহং’

আলোগুলো নিভেছে, ফিউজটা জ্বলে গেছে প্রচারের দাপটে। বিজ্ঞাননির্ভর জীবনেও মায়াবী রাতে তারাদের দিকে উদাস চেয়ে থাকি, ছোঁয়ার আশায়। কবে আবার নতুন করে জীবনটা নিওনছটার বাইরে চাঁদের মায়া দেখবে? কবে আবার আজটা কাল হবে, পরশুটা আজ।

চিত্রশিল্পী অদিতি চক্রবর্তী

The Bankrupt Media

From the ascent of Keith Rupert Murdoch in 1952, the media industry had taken a perilous path. It is no longer the echo of episodes around. It is ruled by what the sponsors desire the masses to imbibe. Their slogan is reflected in the amount of dosh they roll out for its publicity. Not without rewards. Corporates are not fools to invest without returns. The mass, no matter how smart they may feign, fall a prey to their trap. With time, its expression through several stages of mutation has undergone finesse in its delivery. With the advent of electronic boulevards, this sponsorship has attained hazardous fierceness with slogans under its veil.

The American elections use it forcefully for their campaign. Under the prevalent colonial mind-set, no wonder India trails the trait of the west, more so, with outbreak of new avenues of expression. The young journalists might ask ‘Should we follow guidelines laid by our masters?’ The hidden answer is ‘Obey or be fired’. In today’s world ruled by corporates, the crucial dictum is one who pays, has a say. The balance sheet is prime than the content delivered, to run an establishment without loss. The media gurus know it too well. Occasionally they perform well, minting the lolly, at other times, despite failures, they prod on, hoping for a miracle.

With technological progress, the rivalry between media barons have reached crucial heights. Often they taint the facts with their high-tech ad-libbing, to sell the slogan of their financers. Often it pays, even it’s veiled crap. Otherwise The Sun or The Daily Mirror would be burst long back. Often the impact it creates is enough to move mountains, especially in a democratic environ, where the masses are fooled into believing what is delivered of the shifting political saga. How many are aware of the hidden deals behind the scenes aimed at ‘designed firm mass indoctrination’? Even with their intelligence, they succumb to the finer media gruelling. Sometimes for pastime orgasmic flavour or foolishly believing it to be true.

It has always been over centuries. If the resurrection saga of Jesus Christ can be sold to billions over centuries, what’s wrong with media treading their shoes? Devotees would hardly believe anything except what they have been groomed by their habituated rearing.

People believe what is easy without thinking. They wouldn’t accept otherwise than tutored. The reason seems obvious. All want to be in track with the current flow, lest they fall out of their social environ as outcaste. Often intelligentsia and virtual achievers are hired for a lump sum, to echo their authenticity. The ‘intelligent fools’ fall a prey discussing the rationality of their arguments with ornate discussions in social media. But debates are nothing but orgasms of the impotent. How many use their intellect to analyse the validity of ‘behind the scene’ deals?

Their greatest drawback is failure of assessment, what is good for them. Mundane arguments leading nowhere may give them a biased false sense of satisfaction from fleeting public judgement. In no way does it contribute to their personal or collective progress. They waste their valuable vigour, which could have been used for fruitful pursuits. Thinking is too strenuous than giving imbibed net-backed opinions. In this age of ‘instant’ returns, prompt short-term entertainment lies in gratification than long-term productive efforts. Let those remain a fruitless passion for those ‘fools’ who can think beyond a prevalent practice.

People are in quest of cheap fun, either in the social network platter or in the rubbish churned daily. The media gurus call it TRP.  They cultivate non-specific entities to ‘a so-called celebrity’ vomiting them at the platter of ‘intellectual fools’. Not knowing is a nuisance. Limited knowledge’ about all gives them the satisfaction of completeness – a risky attire in disguise. Sponsored political crap is carefully orchestrated as the headlines to the consumers, unaware of the returns it might fetch. Does it matter to a commoner, who wins the election? For ages the poor have been duped to fantasising betterment like an inaccessible apple. Lucky they have never tasted it, or else, the evolution would take a regressive course. For others, who would be interested in political jargon, which political ensemble ascends the throne, if they haven’t vested interests linked?  Still for the lazing past timers it is useless pastime without cerebral input. Ideological support? Fully aware, political or religious supremacy has no ideology, except self-survival, ready to shift paradigms for retaining sovereignty.

In a critical economic scenario, the politicians hang the forbidden apple, to ooze out their electoral victory, cunningly overlooking their assured dreams. Dreams never turn to reality, except giving the disillusioned mass, a flicker of unfeasible hope.

Incompetent reporters delivering features without adequate homework in sub-standard format wanes to a dearth of content in production. Outside the slogan or celebrity merchandise, they have very little to offer as ingredients of thought. Resultantly, content material is superseded by sponsorship ads to top up the revenues, which seem to occupy the bulk more than content. Energetic market-driven management youths aim for a quick brass, their thought process confined in the invisible cage of marketing and profits. In that process, they cripple the thought process of the mass, who could have been productive in their humble capacity and contributed to the society in a healthier way.

This is what I call the bankruptcy of media.

The autonomous rationality is vital for evolution of humanity. With it being thwarted, the money-oriented media play safe in governing the idiocy. Honest media should aim at nurturing it for progress of humanity than deterring the productive mind-set. How many thought provoking discussions or articles do we come across, to whip the young brains to deliver their individual fruit? Academic feats have limitations in a structured environ. The mind is an infinite reservoir of new fruitful ideas. Until such time, when the material mantle takes a balanced stance (an unrealistic expectation) evolution would be a ‘myth’ retitled in the inhibited milieu.

Wake up folks. Time to think of what is beneficial to you than dance to the desperate survival effort of a bankrupt media.

Create a free website or blog at WordPress.com.

Up ↑

StormyPetrel

আমার মনের মাঝে যে গান বাজে,শুনতে কি পাও গো?

Writcrit

Creative and Bookish

The Blabbermouth

Sharing life stories, as it is.

Prescription For Murder

MURDER...MAYHEM...MEDICINE

Journeyman

Travel With Me

কবিতার খাতা

কবিতার ভুবনে স্বাগতম

NEW MEDIA

LITERARY PAGE

Coalemus's Column

All about life, the universe and everything!

Ronmamita's Blog

Creatively Express Freedom

যশোধরা রায়চৌধুরীর পাতা

তাকে ভালবাসি বলে ভাবতাম/ ভাবা যখনই বন্ধ করেছি/দেখি খুলে ছড়িয়েছে বান্ডিল/যত খয়েরি রঙের অপলাপ/আর মেটে লাল রঙা দোষারোপ

Kolkata Film Direction

Movie making is a joyful art for me. I enjoy it as hobbyist filmmaker - Robin Das

arindam67

বাংলা ট্রাভেলগ

The Postnational Monitor

Confucianist Nations and Sub-Sahara African Focused Affairs Site

TIME

Current & Breaking News | National & World Updates

বিন্দুবিসর্গ bindubisarga

An unputdownable Political Thriller in Bengali by Debotosh Das

rajaguhablog

Welcome to your new home on WordPress.com

জীবনানন্দ দাশের কবিতা

অন্ধকারে জলের কোলাহল

Debraj Moulick

Dangling between Books & Films

A Bong পেটুক's quest .....

“I hate people who are not serious about meals. It is so shallow of them.” ― Oscar Wilde, The Importance of Being Earnest

%d bloggers like this: