কত গান শুনেছি কত মধুমাখা স্বপ্নে

জন্ম থেকে মৃত্যুর সমাধি স্থলে।

স্বপ্ন মাখা মধুর কবিতায় আঁকা

কল্পনার রঙে বিভোর।

শৈশব থেকে বার্ধক্যের

সুদীর্ঘ পথ ধরে আনন্দ,

দুঃখ মূর্ছনার পথ ধরে

সান্ত্বনার অতীত পেরিয়ে বর্তমানের ঠিকানায়…

মালঞ্চ বীথির কুঞ্জ থেকে বাস্তবের আঙ্গিনায়।

আমার না-পাওয়া স্বপ্নের মজলিসের

স্বপ্ন কামনার ফেলে আসা সুদীর্ঘ ব্যর্থতায়।

যেখানে রূপ থেকে রূপান্তরের মিথ্যে বাক্য ফোটে

স্বপ্ন দুয়ারের রুদ্ধ বদ্ধ নিঃশব্দ আঙিনায় বাক্যের তীর ছোটে

ফিরে তাকাই স্বপ্ন মাখা ইতিহাসে আরেকবার।

কেউ তো করেনি মানুষকে একবারও সেলাম!

নিজের ধান্দা আর ক্ষমতার স্বপ্ন লোভে

লিখেছে গীত,  গেয়েছে সঙ্গীত জাগিয়েছে হিল্লোল কল্লোলে।

শকুনির মতন উল্লাসের মত্ত শৃঙ্গারে

সহস্র কোটি লোকের লাসের কুরবানে।

কিছুই পালটায়-নি পালটেছে শুধু বেশ

নতুন স্বপ্নের নব সৌরভে বেঁধেছে নতুন এলোকেশ।

শোষিত মানুষ আজও পদাঘাতে পৃষ্ঠ

আজও স্বপ্ন দেখে শকুনির গীতা পাঠ শুনে।

অমৃতের স্বপ্নের রঙে উর্বর

যুগ থেকে যুগান্তরের মিথ্যে শ্লোগানে।

হে আগামী দিনের স্রস্টা

একটা গান শোনাও

যুগে থেকে যুগান্তের মরীচিকার মধ্যে

শোনাও নতুন কোনও গীত মালা।

সেই প্রতীক্ষায় মৃত্যুকে আলিঙ্গন করব।

কবে আসবে হে নব যুগের উল্লাসে মাতা

আগামীর সত্য স্রষ্টা?

Advertisements