জীবনের অনেক ধোঁয়াসে রাত

পার হয়ে গেল

খুঁজতে মধুমাখা জ্যোৎস্না।

গাঢ় অন্ধকারের মধ্যে

কেটে গেছে শৈশব যৌবন

প্রোঢ়ত্ব ছাড়িয়ে বার্ধক্যের আঙিনায়।

জীবন ব্যাপ্তির উজ্জ্বল মধুমাখা ঔরসে

ব্যর্থতা প্রকাশের অনীহার মুখোশে

কেটে গেছে কাল বিদীর্ণ করা মহাকাল।

তবুও ফোটেনি গোলাপ, জাগেনি সূর্য

ব্যর্থ স্বপ্নের না-বোঝা বিলাপে।

ফোটেনি গোলাপ, আসেনি সূর্য

আমার স্বপ্নের সোনাঝরা

ভুলে থাকা সাজানো বাগানে।

তবুও লাশটার কবর খুঁজতে খুঁজতে

স্বপ্নে বিহ্বল মজলিসে

আজও আমার জীবন্ত চিতা জ্বালাই

স্বপ্নের পরবাসে।

ত্রাসে, উল্লাসে, স্নেহাদর ভরে

সাজাই তাকে বহু যতন পরে।

স্নিগ্ধ শান্ত বনবীথিকার কুঞ্জে বসে

অন্ধকার ভরা স্বপ্নের মজলিসে।

হারনো বাইজির নপুর নিক্বণে

মজলিস মধুমাখা রাতে

এখনও তো শেষ হয়নি

আমার চাওয়ার মালা।

কিংবা রাতের কনক কাঁকনের

নূপুর নিক্বণ খেলা।

এখনও তো রয়ে গেছে

আমার স্বপ্নে দেখা

নতুন আলোর ঠিকানা।

হাজারো মজলিসের গুণগানে।

এখনও ভরা আমার আঙিনা।

শরত কী বসন্ত কে চুমু খাবে?

স্বপ্নটা কী বাস্তবে মিলাবে?

কোন সুদূরের মরীচিকার স্বপ্নগাথা ছেড়ে

আমি আসব আলোকের আঙিনায়?

যেখানে অনাবিল বসন্ত ফোটে

অহরহ জীবনের মোহনায়।

যেখানে আলো শুধু স্বপ্ন নয়

জীবন্ত দিশা অন্ধকারের আঙিনায়।

সেই আলোর দিশা চেতনার নব উত্তরণের মহিমায়।

Advertisements