Search

Month

September 2015

Tender Lips

The genteel smack of loving lips

Wild mantle of unfelt bliss

The aura yearned in plumy bloom.

In cryptic shade of the canopy arcade

The warmth of ecstasy of the prissy lassie

White feather, unkempt hair.

Recalls the lustre of the wonder

Amid the fervent fond splendour.

The moon set, dusk alight

Spring sings the fleecy berceuse

Moon lost amid the floating clouds

Fond kiss buried in shroud

Love is sweet of inglorious lullaby.

The caress of your twee lips

Goody empyreal blissful kiss

Ferries us to a wonderland.

Where moon is dead thousands bled

To the inert sense of satisfaction.

Our love is eonian beyond this epoch.

NOVEL: DOES IT HAVE A PATTERN? -Aniruddha Bose

Literature has defined various ways of writing a novel – its characters, methodology and handling. Various instructional courses are in trend for aspiring authors on how to write a novel. Some are assiduously followed in the ambition of being a successful author. All these structural models are on the basis of classification of the genre of a novel i.e. romance, erotic, thriller, social, murder-suspense, motivational etc. All these archetypes are created to give an evocative description to the product. The market acceptability in relation to commercial success is also under consideration.

This limits the originality of the creator and subjects him to the confines of known patterns of successful literature. Successful by past proven standards, which some people attribute as the corporate vomitus of an attempted creative endeavour. Corporates can efficaciously market a product, but cannot think anew creative. Irrespective of known sorts, novels broadly fall under four groups:

  • Uninteresting with lack of depth
  • Uninteresting but makes us ruminate
  • Captivating read without significant impact
  • Interesting with significant deep insight

Before discussing other aspects of framing a storyline, I confess that I consider first few pages must be enthralling to captivate the reader to carry on. Today where storybooks seem to be at the backseat over other futile endeavours, appeal to a potential reader is prime. Good or bad, if there isn’t a reader to turn the pages, the whole effort is wasted. This raises another vital issue – who is the reader? Each reader has his or her own backdrop and exemplar. Environ is prime as the mental maturity stems from it. The key factor for a potential reader is the groomed panorama – his expectations. One who is accustomed with the presentation of 19th century masterpieces may deem 20th and 21st century works to be not in line with his thought. To him it may be difficult to accept the 21st century way of expression not up to his/her taste. Over years the mode of expression has undergone a radical mutation. The socio-cultural manacles often limit the thinking in a new light.

Creativity is not re-brewing old wine in a new bottle. It is new mode of expressive thought out leaping the confines of age, sex, culture, civilisation, era. It is expressive thought in relevance to the theme of storyline.

If one were to satisfy the reader ignoring the core of the character and theme, it would amount to hypocrisy. It would be in lines with commercial misadventures than truthful efforts. When an originator crafts, the prime focus in his mind is the theme and validity of characters – not on similar ones of the past, but one relating to today’s context. If a section of the reader cannot evolve with time, he is stuck in the fetters of his past archetypes. Evolving out of forlorn concepts is the essence of authentic creativity garnished in a new style. Not many authors have the courage of breaking the manacles not only in style, but also in mélange of the defined genres. In customary ones known predictable variants have been explored by various authors. What if a poetry or short story genre is mingled to shape a new storyline? It doesn’t have a defined category but a new approach. What if the storyline is fascinating with an authentic notable theme? Who knows, it could churn up an array of new genres not written before.

In the routine flow of information woven into a storyline this exclusivity catches the reader. When I finished my first Bengali novel, I was advised to translate the English dialogues to Bengali by orthodox traditionalists of Bengali literature. Much to their dismay, I stuck to my way of presentation with not too bad a result.

Another issue crops up. What is erotic fiction? What is classic literature? The definition of the word ‘erotic’ varies not only with economic and socio- cultural rearing. Rather it is on the context of the theme. Eroticism is tainted term more than sex. It involves propagation of gene as per laws of nature for perpetuation of human race. While going through a software called “Grammarian” which I am sure many authors use, I came across two categories ‘Sexist Phrases’ and ‘Slang Expressions’. A person from lower strata often use these phrases in their dialogues. If I were to scribble the exact dialect in a conversation to portray the character vividly, would it termed as ‘slang’ or ‘sexist’? From 20th to 21st century literature has undergone a radical transformation. So has our expression of language – from the poetic myths to sharper ones, which portrays the essence of character in a conversation. To understand its significance, it is crucial to shred the traditional restraints and delve into the essence of the novel.  Only then can one understand its relevance. With an evolving literary milieu, there has also been a change from old expressions to new ones many conveniently making its way to the dictionary. It may include words from other languages too. This is a part of evolution process. Only time can judge which withstands its test.

Coming to the point of the quality of literature. All books are not for everyone. Each creation has its own set of readers, contingent of their archetype. An author is versatile, one who can break his style, genre and pattern in every of his creation. One who cannot, falls in the trap of a corporate (or thought wise limitedly biased) yarn. If an author can be identified by repetition of his style, theme or storyline, he has worn out. In other words, he hasn’t cultivated enough to re-fashion himself. This amounts to being fruitlessly stagnant in his creative endeavours. Many renowned authors fall in the trap and attempt to churn out the previously successful pudding with a different icing, which sadly gets rejected.

The best way to assess a novel is to forget the name of the author and judge it on the validity of storyline before passing a verdict. Of the four broad classifications I highlighted earlier, the one which is an interesting read with significant insight stands the the passage of time. My humble opinion would be not to channelize creation on a set pattern of familiar genres, but to read it as creation, irrespective of name, honours of the author, without a bias of categorical pattern and appreciate (or denounce) the creation as a whole, without prior bias or midway prejudice.

Midnight Yearns

The million poetic adventures seen

Of the tuft of green amid the dainty teens

The feathers sweet but silent

Lovely meadows, amidst the brook side tide

The tender kiss of that anonymous bride

When the billowy moon catches the feather tide

Lonesome kiss of the deserted lonely bride

Her tender lips, the genteel kiss

Moonlit sonata sings a tranquil bliss

The tide has strolled amid magic wonder

To caress the spring of the midnight yonder

The sweetest of dreams all in harmony

Singing the cadence of realised melancholy

Brighten her lips, her regal touch

She is the daylight of midnight yearns.

The spring of the forlorn light

The smooch of midnight delight.

নীতা থেকে নন্দিনীঃ অবচেতনের ক্যানভাস -তন্ময় দত্তগুপ্ত

Canvase (Front Page)

উপন্যাসের জন্ম ইতিহাস বহু প্রাচীন।

বাংলায় সাহিত্যে প্রথম সার্থক উপন্যাস বঙ্কিমচন্দ্রের দুর্গেশনন্দিনী। প্রশ্ন আসতেই পারে সার্থক উপন্যাস কাকে বলে? প্রখ্যাত লেখক মোপাসাঁও স্বয়ং এই প্রশ্ন তুলেছিলেন। হেনরি জেমস তার সুবিখ্যাত আর্ট অফ ফিকশান প্রবন্ধে বলেছেন “As people feel life, so they will feel the art that is most closely related to it. This closeness of relation is what we should never forget in talking of the effort of the novel”. এই ‘closeness of relation’  উপন্যাসের শিল্প বিচারে প্রধান বিষয়।

উপন্যাসের আর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় দ্বন্দ্ব বা conflict। দ্বন্দ্ব গড়ে ওঠার একটি  সাধারণ সূত্র হল Main+Opposition=Conflict. অর্থাৎ মুখ্য চরিত্রের সঙ্গে বিপরীতমুখী চরিত্র বা খল চরিত্রের সংঘর্ষে দ্বন্দ্ব সংঘটিত হয়। এবং এই দ্বন্দ্বের মাধ্যমে উভয়েই একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌছাতে চায়। এই দ্বন্দ্বের কিছু ভাগ হতে পারে Inner Conflict বা অন্তর্দ্বন্দ্ব, Outer conflict বা বহির্দ্বন্দ্ব এবং Jumping conflict বা আকস্মিক দ্বন্দ্ব। ব্যক্তির নিজের সঙ্গে নিজের দ্বন্দ্ব; অন্তর্দ্বন্দ্বের অন্তর্ভুক্ত। বহির্দ্বন্দ্ব হল ব্যক্তির সঙ্গে সমাজের বা পারিপার্শ্বিক পরিবেশের দ্বন্দ্ব। আর অনভিপ্রেত ঘটনা বা দুর্ঘটনার ফলে যে দ্বন্দ্ব; তাই আকস্মিক দ্বন্দ্ব। সামাজিক, ঐতিহাসিক, রোমান্টিক, পৌরাণিক প্রায় সমস্ত উপন্যাসে দ্বন্দ্বের এই প্রকাশভঙ্গী পরিলক্ষিত।

ভূমিকায় এত কিছু বলার কারণ একটাই।

অনিরুদ্ধ বসুর উপন্যাস ক্যানভাসে দ্বন্দ্বের বহুমুখী দিক প্রকাশিত। আর প্রকাশিত হেনরি জেমসের সেই ‘closeness of relation’ যা উপন্যাসের পড়তে পড়তে পর্যাপ্ত।

রাধার পর খাওয়া

খাওয়ার পর রাধা

বাইশ বছর এক চাকাতে বাধা।

চেনা চিরারিত ছক। যেন ক্যানন মেশিনে ফোটোকপি। সংসার, পরিবার, সন্তান উৎপাদন। চেনা দুঃখ চেনা সুখ চেনা চেনা হাসিমুখ। তাই জীবনের যবনিকাও পড়ে চেনা চক্রে। কিন্তু চেনা বৃত্তের বাইরে হাঁটতে চায় কেউ কেউ। তারা সংখ্যায় মুষ্টিমেয়। তাই তারা ব্যতিক্রমী। নিজস্ব মনের ক্যানভাসে অনুভূতির রঙে তুলি ডুবিয়ে তারা এঁকে যায় একের পর এক ছবি। শূন্য সাদা পাতায় পূর্ণতা দিতে চায় আজীবন।

পূর্ণতা কি আসে?

পূর্ণতা কোথায়?

অন্তমিলে না অমিত্রাক্ষরে?

ক্যানভাস উপন্যাসের মুখ্যরিত্র নন্দিনী পয়ারের পৃষ্ঠা ওল্টাতে ওল্টাতে খোঁজেনি দাম্পত্য সুখ। সে বরং অমিত্রাক্ষর কাটিয়েছে জীবন। মেয়েবেলা থেকে  তার চোখে  স্বপ্ন। স্বপ্নে দেখা পুরুষ। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে  তিক্ত তির্যক অভিজ্ঞতা। আগুনে আগুন। জ্বলে পুড়ে যায় স্বপ্নের শরীর। প্রেমিক ইন্দ্রনীল, নাচের শিক্ষক ঋতব্রত, এসকোর্ট কম্পানীর ক্লায়েন্ট সকলেই তার শরীরী উত্তাপ পেয়েছে। পায়নি বিমূর্ত মনের সুপ্ত ক্যানভাস। তুমি তো কেবলই কাম; কামনার কোজাগরী – এ যেন গড়পত্তা পুরুষের হস্তাক্ষর। নারী পুরুষের জ্যামিতিক যৌনতার পরেও অপূর্ণতা থেকে যায়। ঔপন্যাসিক অনিরুদ্ধ বসুর এখানেই  আত্মবিবৃতি – “বাৎসায়ন নারী পুরুষের এতো ভঙ্গি এঁকেও মনের ছবি আঁকতে পারেনি”। রামধনুর সাত রঙের মতই জীবনের সাত রাঙা রূপ তুলে ধরেছেন লেখক। এই সাতরূপী নন্দিনী বিচ্ছিন্ন হলেও তা একই জীবনের সপ্ত সুরের মতো। সারা জীবন ধরে সে চেয়েছে তার মনের ক্যানভাস রাঙাতে। উপন্যাসের শেষে সে পেরেছে। সে পেরেছে এই ছবি আঁকতে। রং তুলির নিখুঁত টানে নন্দিনী ছুঁয়েছে আত্মজীবনীর আকাশ। আকাশে আকাশে খণ্ডিত ‘আমি’-র রূপ। নন্দিনী খুঁজে পেয়েছে তার নিজস্ব ‘আমি’। এ যেন ‘তখন তেইশ’ চলচ্চিত্রের প্রধান চরিত্র তমোদীপের  অনুভূতি – “চারদিকে ছড়িয়ে আছে  রং। কম্পিউটারের ভি জি এ প্যানেল থেকে বেশি। মোর দ্যান সিক্সটিন মিলিয়ান কালারস। আমার শিল্পী হওয়া কে আটকায়!” গহন অনুভূতির রং-এ স্নাত দুজনেই। নন্দিনী এবং তমোদীপ। একজনের অনুসন্ধান প্রকৃতির মাঝে। অন্যজনের গভীরে। দিগন্ত বিস্তৃত ‘আমি’-র আকাশ। সত্তার সমুদ্রে ডুব দেয় উভয়েই। খুঁজে পায় নিজস্ব ‘আমি’। ধান্দার বিশ্বে বার বার ফাঁদে পড়েছে নন্দিনী। সহজ সরল রৈখিক পথ বদলেছে নিমেষেই। জটিল থেকে জটিলতর হয়েছে জীবন। জীবনের বাঁকে বাঁকে শুধু শরীরী খেলা। দিকশূন্য র‍্যাট রেস। কেবলই ছুটে চলা। মেঘে ঢাকা তারার নীতা বলেছিল – “দাদা আমি বাঁচতে চাই”। তেমনই করুণ কাতর মনস্বর।

কী যুগ্ম যোগসূত্র!

দুজনেই পুরুষতান্ত্রিক সমাজে বিপর্যস্ত। সময়ের ব্যবধানে তাদের যন্ত্রণার উৎস ভিন্ন। তবুও নীতা আর নন্দিনী মিলে মিশে যায় একই জীবনের ক্যানভাসে। যেখানে রক্ত আর রং একাকার। নীতা বা নন্দিনীর অহরহ রক্তপাত; সে তো খ্রীষ্টের নিয়তি। নন্দিনী কী এ যুগের নীতা? বা তার স্মৃতির পুনরাবিষ্কার? ক্যানভাস উপন্যাস পাঠে এমন অনেক প্রশ্ন ঝিলিক দেয়।

প্রকৃতপক্ষে অনিরুদ্ধ বসু উপন্যাসের ফর্ম নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছেন। ফেসবুকের এক অচেনা মহিলার বাক্যালাপ থেকে তৈরী তিনশ বাহান্ন পৃষ্ঠার উপন্যাস। নন্দিনীর জীবন কাহিনী বর্ণনা ভিত্তিক হওয়া সত্ত্বেও সরল রৈখিক নয়। জীবনের এখানে বহু বিন্যাস। বিন্যস্ত নন্দিনীর মনস্তত্ত্ব। কী আশ্চর্য পরিসমাপ্তি! উপন্যাসের উপংসহারে লেখকের অকপট স্বীকারক্তি। নিজের সত্তাকে বিযুক্ত করে আয়োজিত লেখক পাঠক কল্পিত কথোপকথন। এ যেন ব্রেষ্টের এলিয়েনেশন।

প্রচ্ছদ শিল্পী অদিতি চক্রবর্তীর রং তুলির মেধাবী উপস্থাপনায় উজ্জ্বল ক্যানভাসের প্রচ্ছদ। বইয়ের ছাপা ও বাঁধাই সর্বাঙ্গীন সুন্দর। দ্বন্দ্ব অন্তর্দ্বন্দ্ব এবং আকস্মিক দ্বন্দ্বের সমাহারে অনিরুদ্ধ বসুর লেখনী উপন্যাসের গতিকে দ্রুত করে। সেই সঙ্গে মুগ্ধ করে লেখকের পোয়েটিক অ্যাপ্রোচ। যার ফলে প্রথম পাঠের পর দ্বিতীয় পাঠের আবেদন জন্মায়। সব শেষে বলি, ক্যানভাস এবং নন্দিনী একে অপরের পরিপূরক হলেও তা ব্যক্তি অতিরিক্ত এক ধারণা।

হয়ত আমাদের অবচেতনের ক্যানভাস।Canvase Advertisement

http://www.smritipublishers.com/bookdetail/Canvase/33/

Touch of The Class

Touch of the class

Mystic in pleasing glass

The marvel of time

Sings the golden rhyme.

The mystique of space

Moseyed ablaze

Amid the smidgen of ethereal void.

With thousands bled to the class caress,

The moon lustres relentless in gory crusades

To spring ignored glory.

The touch is valid victory

Creed of grandeur crusade.

The moon glides in dainty delight

Amid the wild tender holy bliss.

The silent odes of truth Divine
Strewn in chateaus of celestial wine

Sing O lord in mystic glum

Sing its class in soliloquy.

In lost jingles of a forlorn lullaby

Embellish your tender lips,
On the floating mountain sill

The lost serenade of a neglected dawn

Kissing the caged splendour.

Divine kiss in her warm lips.

The class is a myth, of scrappy wonder.

Sweetest Thoughts

Have I sung the sweetest song?

In my solitary agony, all night long..

Of the nights and days in oblivion

Of the kiss yearned in unfelt song?

Of the tender Sistine touch, withheld feelings?

Part of our sojourn in life

Written in obnoxious jargons.

Lyrics of life is yet to fathom

On your birthday rhythm

Life is a song of lullabies

Yet to blossom…

Of the tender springs in wild spring kiss

Sleeping at  wondering at the unseen glees…

Dreaming of meadows would caress

Of the future wonder – we possess

The wonder is here to see
The splendour anonymous rummaging bonfire.

Yet to glee..

 

স্বপ্ন দেখেছি

স্বপ্ন দেখেছি ফুলের সৌরভে

স্বপ্ন দেখেছি বনবীথিকার গৌরবে

আমার না-দেখা মালঞ্চের আঙিনায়।

স্বপ্ন দেখেছি নতুন পৃথিবীর

মর্তলোকের শান্তির নিবিড় বন ছায়ায়।

সংগ্রাম হীন যুগ প্রত্যয়ের

কলেবরে সমৃদ্ধ সতেজ সবল

নিজ ভাবনায় নিজ চিন্তায় বলিষ্ঠ বলিয়ান।

স্বপ্ন দেখেছি অনুদ্ভাসিত

না-চেনা যুগের দৃঢ় আত্ম-প্রত্যয়ের

না-ফোটা কিশলয়ের এক বৃন্তের উদ্ভাসের

পরিক্ষিত সতেজ স্বাড়ম্বর অভ্যুত্থান।

অবক্ষয়ই পৃথ্বীর এক কোনে দাঁড়িয়ে

নির্বাক নিজেকে ঘোষণায় স্ফূর্ত

সদর্পে সগৌরবে নিজ গুনে বলিয়ান।

স্বপ্ন দেখেছি ছন্দ বাসর

ফেলে দেওয়া মজলিসের চেনা আসর

জাগতে,কালকে পেছনে ফেলে

আগামী দিনের না-বলা ধ্বনিকে

ফোটাতে আসরে সতেজ নির্বাক সমীহান।

চেনা রজনীগন্ধার মালা ছিঁড়ে ফেলে

ফোটাতে হাসনুহানা নব দিগন্তের বাসরে

সুর-তাল-কাব্য সৃষ্টির না-দেখা কল্পনায়

আপন নিজ সক্রিয় নিজ মহিমায়।

না-চেনা ঔরসের গহ্বর থেকে

বেরিয়ে আসা লাভার উদ্গিরন।

শ্লথ পথ,না-চেনা রথ,না-দেখা কালকের কিরণ

কিছুই নেই,আছে শুধু মনকে খুঁজে পাওয়ার

না-চেনা,না-খোঁজা,নিজের অবচেতন।

যেখানে পাখিরা ভাসে নির্মল আনন্দে

যেখানে হৃদয় কথা কয় না-বলা ছন্দে।

সুরে-ছন্দে-শিল্পে-কাব্যে-প্রকাশে

লেজারের  না-বলা কম্পনে।

বিশ্ব আজকে খুঁজছে সেই হৃদয়ের প্রস্ফুটিত বৃন্ত।

সেটাই নিয়ে যাবে ক্ষয়িষ্ণু ধরাকে

যুগে থেকে যুগান্তের নতুন পুলকে

আত্মার জাগ্রত  নব চেতনার নব আলোকে।

স্তব্ধ

এখনও স্তব্ধ বদ্ধ মহাকাল

সময়ের গীতে না-চেনা সংগীতে

স্তব্ধ কলেবরের ঐকতান।

এখনও স্তব্ধ মহাবিশ্ব

কালকের লিখনের অভিধান।

স্তব্ধ নিঃশব্দ প্রতিবন্ধ

গায় অন্ধকারের না-চেনা স্লোগান।

শোনায় আগামীর

না-চেনা অভিধানের না-লেখা গান।

অন্ধকারের বুক চিরে ভেসে আসে

একটাই মর্মভেদী স্লোগান।

আমার চেতনার আমিই আজকের সত্যি

কালকের উপঢৌকন বাজারি স্লোগান।

কালকের চেতনার নিভৃত গান।

শ্রান্ত দিনের বাসনা

শ্রান্ত দিনের বাসনা

মুক্ত চেতনের কিনারায়।

অবচেতন যেখানে খেলা করে

আলো-আঁধারির আঙিনায়।

স্তব্ধ জলরাশি, করে হাসাহাসি

আজকের ফোটানো জ্যোৎস্নায়।

কালকের প্রভাত সূর্য হাসে

এদের না-চেনা সত্যের চেতনায়।

যুগ কলেবর তোলে কলরব

নিজেদের স্বপ্নের অট্টালিকায়।

প্রভাত সূর্য মুচকি হাসে

এদের প্রহসনের উন্মাদনায়।

কবে চেতনা ফিরবে?

কবে জাগবে বাঙালি?

প্রহসন ছেড়ে বাস্তবের আঙিনায়?

 

Blog at WordPress.com.

Up ↑

StormyPetrel

আমার মনের মাঝে যে গান বাজে,শুনতে কি পাও গো?

Writcrit

Creative and Bookish

The Blabbermouth

Sharing life stories, as it is.

Prescription For Murder

MURDER...MAYHEM...MEDICINE

Journeyman

Travel With Me

কবিতার খাতা

কবিতার ভুবনে স্বাগতম

NEW MEDIA

LITERARY PAGE

Coalemus's Column

All about life, the universe and everything!

Ronmamita's Blog

Creatively Express Freedom

যশোধরা রায়চৌধুরীর পাতা

তাকে ভালবাসি বলে ভাবতাম/ ভাবা যখনই বন্ধ করেছি/দেখি খুলে ছড়িয়েছে বান্ডিল/যত খয়েরি রঙের অপলাপ/আর মেটে লাল রঙা দোষারোপ

Kolkata Film Direction

Movie making is a joyful art for me. I enjoy it as hobbyist filmmaker - Robin Das

arindam67

বাংলা ট্রাভেলগ

The Postnational Monitor

Confucianist Nations and Sub-Sahara African Focused Affairs Site

TIME

Current & Breaking News | National & World Updates

বিন্দুবিসর্গ bindubisarga

An unputdownable Political Thriller in Bengali by Debotosh Das

rajaguhablog

Welcome to your new home on WordPress.com

জীবনানন্দ দাশের কবিতা

অন্ধকারে জলের কোলাহল

%d bloggers like this: